|

যোহরের নামাজ কয় রাকাত কিভাবে পড়তে হয়

যোহরের নামাজ কয় রাকাত কিভাবে পড়তে হয়? Johor Namaz Rakat

বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম, ইনশাআল্লাহ আজকে আলোচনা করব যোহরের নামাজ কয় রাকাত কিভাবে পড়তে হয় এবং জোহরের নামাজের সময় সম্পর্কে।

যোহরের নামাজ কয় রাকাত

যোহরের নামাজ মোট ১০ রাকাত। তার মধ্যে ৪ রাকাত ফরজ যেটা জামাতের সাথে আদায় করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তবে কেউ যদি মাঝে মধ্যে জামাতে উপস্থিত হতে সক্ষম না হয় তবে বাড়িতেই একাকী পড়তে পারে। ফরজের পূর্বে ৪ রাকাত এবং পরে ২ রাকাত যা সুন্নাতে মুয়াক্কাদাহ। ফরজের পূর্বে ৪ রাকাত খুবই গুরুত্বপূর্ণ কারন রাসুল (স) কোনদিন সেটা ছাড়েননি। তবে সুন্নাত নামাজ না পড়লেও কোন গুনাহ হবে না; পড়লে অনেক ফজিলত রয়েছে।

আয়িশা (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ তিনি বলেন, নবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) যদি যুহরের পূর্বে চার রাকআত না আদায় করতেন তবে যুহরের (ফরযের) পর তা আদায় করতেন। (তিরমিজি হাদিস নং ৪২৬)।

যোহরের নামাজের সময়

সূর্য পশ্চিম দিকে ঢললেই যোহরের ওয়াক্ত শুরু হয় এবং বস্তুর নিজস্ব ছায়ার এক গুণ হলে শেষ হয়। (মুসলিম, মিশকাত হা/৫৮১)

যোহরের নামাজের নিয়ম

(১) তাকবীরে তাহরীমা : ওযূ করার পর ছালাতের সংকল্প করে ক্বিবলামুখী দাঁড়িয়ে ‘আল্লা-হু আকবর’ বলে দুই হাত কাঁধ বরাবর উঠিয়ে তাকবীরে তাহরীমা শেষে বুকে বাঁধবে। এ সময় বাম হাতের উপরে ডান হাত কনুই বরাবর রাখবে অথবা বাম কব্জির উপরে ডান কব্জি রেখে বুকের উপর হাত বাঁধবে। অতঃপর সিজদার স্থানে দৃষ্টি রেখে বিনম্রচিত্তে ছানা পাঠের মাধ্যমে মুছল্লী তার সর্বোত্তম ইবাদত সালাতের শুভ সূচনা করবে।

(২) সূরায়ে ফাতিহা পাঠ : দোয়ায়ে ইস্তেফতাহ বা ছানা’ পড়ে আউযুবিল্লাহ ও বিসমিল্লাহ সহ সূরা ফাতিহা পাঠ করবে এবং অন্যান্য রাকাতে আউযুবিল্লাহ বাদে কেবল বিসমিল্লাহ বলে সূরা ফাতিহা পড়বে। জেহরী সালাত হলে সূরায়ে ফাতিহা শেষে সশব্দে আমীন’ বলবে।

(৩) কিরাআত : সূরায়ে ফাতিহা পাঠ শেষে ইমাম কিংবা একাকী মুছল্লী হলে প্রথম দু’রাকআতে কুরআনের অন্য কোন সূরা বা কিছু আয়াত তিলাওয়াত করবে। কিন্তু মুক্তাদী হলে জেহরী সালাতে চুপে চুপে কেবল সূরায়ে ফাতিহা পড়বে ও ইমামের কিরাআত মনোযোগ দিয়ে শুনবে। তবে যোহর ও আসরের সালাতে ইমাম মুক্তাদী সকলে প্রথম দুই রাকাতে সূরায়ে ফাতিহা সহ অন্য সূরা পড়বে এবং শেষের দুই রাকাতে কেবল সূরায়ে ফাতিহা পাঠ করবে।

(৪) রুকু : কেরাত শেষে ‘আল্লা-হু আকবর’ বলে দু হাত কাঁধ অথবা কান পর্যন্ত উঠিয়ে ‘রাফউল ইয়াদায়েন করে রুকুতে যাবে। এ সময় হাঁটুর উপরে দু’হাতে ভর দিয়ে পা, হাত, পিঠ ও মাথা সোজা রাখবে এবং রুকুর দোয়া ‘সুবহা-না রব্বিয়াল আযীম’ (মহাপবিত্র আমার প্রতিপালক যিনি মহান) কমপক্ষে তিনবার পড়বে।

(৫) ক্বওমা : অতঃপর রুকু থেকে উঠে সোজা ও সুস্থিরভাবে দাঁড়াবে। এ সময় দু’হাত কিবলামুখী খাড়া রেখে কাঁধ পর্যন্ত উঠাবে এবং ইমাম ও মুক্তাদী সকলে বলবে ‘সামি‘আল্লা-হু লিমান হামিদাহ’ (আল্লাহ তার কথা শােনেন, যে তার প্রশংসা করে)। অতঃপর কওমার দোয়া ’রব্বানা লাকাল হামদ’ (হে আমাদের প্রতিপালক! আপনার জন্যই সকল প্রশংসা) অথবা ‘রব্বানা ওয়া লাকাল হামদু হামদান কাসীরান ত্বায়্যিবান মুবা-রাকান ফীহি’ (হে আমাদের প্রতিপালক! আপনার জন্য অগণিত প্রশংসা, যা পবিত্র ও বরকতময়) একবার পড়বে। ক্বওমার জন্য অন্য দোয়াও রয়েছে।

(৬) সিজদা : ক্বওমার দোয়া পাঠ শেষে ‘আল্লা-হু আকবর’ বলে প্রথমে দু’হাত ও পরে দুই হাটু মাটিতে রেখে সিজদায় যাবে ও বেশি বেশি সিজদার দোয়া পড়বে। এ সময় দু’হাত কিবলামুখী করে মাথার দু’পাশে কাধ বা কান বরাবর মাটিতে স্বাভাবিকভাবে রাখবে। কনুই ও বগল ফাঁকা থাকবে। হাঁটুতে বা মাটিতে ঠেস দিবে না। সিজদা লম্বা হবে ও পিঠ সােজা থাকবে। যেন নীচ দিয়ে একটি বকরীর বাচ্চা যাওয়ার মত ফাকা থাকে। সিজদা থেকে উঠে বাম পায়ের পাতার উপরে বসবে ও ডান পায়ের পাতা খাড়া রাখবে। এ সময় স্থিরভাবে বসে দুই সিজদার মধ্যবর্তী বৈঠকের দোয়া পড়বে। অতঃপর আল্লা-হু আকবর’ বলে দ্বিতীয় সিজদায় যাবে ও সিজদার দোআ পড়বে। রুকু ও সিজদায় কুরআনী দোআ পড়বে না। ২য় ও ৪র্থ রাকআতে দাঁড়াবার প্রাক্কালে সিজদা থেকে উঠে সামান্য সময়ের জন্য স্থির হয়ে বসবে। একে ‘জালসায়ে ইস্তিরাহাত’ বা ‘স্বস্তির বৈঠক’ বলে। অতঃপর মাটিতে দু’হাতে ভর দিয়ে উঠে দাঁড়িয়ে যাবে।

(৭) বৈঠক : ২য় রাকাত শেষে বৈঠকে বসবে। যদি ১ম বৈঠক হয়, তবে কেবল ‘আত্তাহিইয়া-তু’ পড়ে ৩য় রাকাতের জন্য উঠে যাবে। আর যদি শেষ বৈঠক হয়, তবে ‘আত্তাহিইয়া-তু’ পড়ার পরে দরুদ শরীফ, দো’আয়ে মাছূরাহ ও সম্ভব হলে বেশি বেশি করে অন্য দোয়া পড়বে। ১ম বৈঠকে বাম পায়ের পাতার উপরে বসবে এবং শেষ বৈঠকে ডান পায়ের তলা দিয়ে বাম পায়ের অগ্রভাগ বের করে বাম নিতম্বের উপরে বসবে ও ডান পা খাড়া রাখবে। এ সময় ডান পায়ের আঙ্গুলগুলো ক্বিবলামুখী করবে। বৈঠকের সময় বাম হাতের আঙ্গুলগুলি বাম হাঁটুর প্রান্ত বরাবর ক্বিবলামুখী ও স্বাভাবিক অবস্থায় থাকবে এবং ডান হাত ৫৩-এর ন্যায় মুষ্টিবদ্ধ রেখে সালাম ফিরানোর আগ পর্যন্ত শাহাদাত অঙ্গুলি নাড়িয়ে ইশারা করতে থাকবে। মুসল্লির নজর ইশারার বাইরে যাবে না।

(৮) সালাম : দোয়ায়ে মাছূরাহ শেষে প্রথমে ডানে ও পরে বামে আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহ (আল্লাহর পক্ষ হতে আপনার উপর শান্তি ও অনুগ্রহ বর্ষিত হোক!) বলে সালাম ফিরিয়ে সালাত শেষ করবে।

Similar Posts