দারেমী পবিত্রতা অধ্যায় ৫ম ভাগ হাদিস নং ৯৮৯ – ১০৯১

৯৮৯

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ৯৯. হায়েযগ্রস্ত মহিলা পবিত্রতা লাভ করার পর হায়েযকালীন পোশাকে সালাত আদায় করতে পারবে

৯৮৯. উম্মু সালামাহ রাদ্বিয়াল্লাহু আনহা বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের যামানায় নিফাসগ্রস্ত (প্রসূতি) নারীরা চল্লিশদিন কিংবা চল্লিশ রাত্রি বিরত থাকতো। আমাদের কেউ কেউ মুখের তামাটে রংয়ের দাগ (দূর করার) জন্য মুখমণ্ডলে ’ওয়ার্’সা’[1] নামক গাছের (নির্যাসের) প্রলেপ ব্যবহার করতেন।[2]

[1] ওয়ারসা’: এক প্রকার হলুদ উদ্ভিদ যা ইয়েমেনে জন্মায়। এথেকে মুখমণ্ডলে ব্যবহারের জন্য প্রলেপ তৈরী করা হয়।

 

[2] তাহক্বীক্ব: এর সনদ জাইয়্যেদ। … হাফিজ তাকরীব’ এ বলেন: একে সহীহ বলেছেন, বুখারী, তিরমিযী, হাকিম, যাহাবী এবং হাসান ও জাইয়্যেদ বলেছেন নববী তার ‘আল মাজমু’ ২/৫২৫ তে…।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ৪/৬৮; আহমাদ ৬/৩০০, ৩০৩, ৩০৪, ৩০৯-৩১০; আবু দাউদ ৩১১; হাকিম ১/১৭৫; দারুকুতনী ১/২২২; বাইহাকী ১/৩৪১; আল মা’রিফাহ নং ২২৮১; ইবনু হিব্বান, আল মাজরুহীন ২/২২৪-২২৫; তিরমিযী ১৩৯; ইবনু মাজাহ ৬৪৮। মুসনাদুল মাউসিলী নং ৭০২৩ এ আমরা এর পূর্ণ তাখরীজ দিয়েছি।

 

এ অনুচ্ছেদে এর শাহিদ হাদীস রয়েছে আনাস রা: থেকে, যার তাখরীজ দিয়েছি মুসনাদুল মাউসিলী নং ৩৭৯১। আরও দেখুন, তালখীসুল হাবীর ১/১৭১।

بَابٌ فِي الْمَرْأَةِ الْحَائِضِ تُصَلِّي فِي ثَوْبِهَا إِذَا طَهُرَتْ

أَخْبَرَنَا أَبُو الْوَلِيدِ حَدَّثَنَا أَبُو خَيْثَمَةَ حَدَّثَنَا عَلِيُّ بْنُ عَبْدِ الْأَعْلَى عَنْ أَبِي سَهْلٍ الْبَصْرِيِّ عَنْ مُسَّةَ عَنْ أُمِّ سَلَمَةَ قَالَتْ كَانَتْ النُّفَسَاءُ تَجْلِسُ عَلَى عَهْدِ رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ أَرْبَعِينَ يَوْمًا أَوْ أَرْبَعِينَ لَيْلَةً وَكَانَتْ إِحْدَانَا تَطْلِي الْوَرْسَ عَلَى وَجْهِهَا مِنْ الْكَلَفِ

إسناده جيد

أخبرنا أبو الوليد حدثنا أبو خيثمة حدثنا علي بن عبد الأعلى عن أبي سهل البصري عن مسة عن أم سلمة قالت كانت النفساء تجلس على عهد رسول الله صلى الله عليه وسلم أربعين يوما أو أربعين ليلة وكانت إحدانا تطلي الورس على وجهها من الكلف إسناده جيد

 হাদিসের মানঃ হাসান (Hasan)  বর্ণনাকারীঃ উম্মু সালামাহ (রাঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ৯৯০

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ৯৯. হায়েযগ্রস্ত মহিলা পবিত্রতা লাভ করার পর হায়েযকালীন পোশাকে সালাত আদায় করতে পারবে

৯৯০. মুয়াবিয়াহ ইবনু কুররাহ হতে বর্ণিত, আয়িয ইবনু আমরের এক স্ত্রী নিফাসগ্রস্ত (প্রসূতি) হলেন, তারপর বিশ রাত অতিক্রান্ত হলে সেই স্ত্রী তার (আয়িযের) লেপের নিচে প্রবেশ করতে গেলে তিনি বলেন: তুমি কে? সেই স্ত্রী বললো: আমি অমুক (স্ত্রী)। আমি পবিত্রতা লাভ করেছি’। একথা শুনে তিনি তাকে পা দিয়ে লাথি মেরে বললেন: আমার দীন নিয়ে আমার সাথে প্রতারণা করো না। (তুমি আমার নিকটবর্তী হয়ো না) যতক্ষণ না চল্লিশ রাত অতিক্রান্ত হয়।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ যয়ীফ জিদ্দান (অত্যন্ত দুর্বল বা জাল পর্যায়ের)। হাদীস নং ৮৬২ (অনুবাদে ৮৫৮) এর টীকাটি দেখুন।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ৪/৩৬৭; দারুকুতনী ১/২২২, দারুকুতনী জালদ-কে যয়ীফ বলেছেন।

بَابٌ فِي الْمَرْأَةِ الْحَائِضِ تُصَلِّي فِي ثَوْبِهَا إِذَا طَهُرَتْ

أَخْبَرَنَا سَعِيدُ بْنُ عَامِرٍ عَنْ هِشَامٍ عَنْ جَلْدٍ عَنْ مُعَاوِيَةَ بْنِ قُرَّةَ أَنَّ امْرَأَةً لِعَائِذِ بْنِ عَمْرٍو نُفِسَتْ فَجَاءَتْ بَعْدَمَا مَضَتْ عِشْرُونَ لَيْلَةً فَدَخَلَتْ فِي لِحَافِهِ فَقَالَ مَنْ هَذِهِ قَالَتْ أَنَا فُلَانَةُ إِنِّي قَدْ تَطَهَّرْتُ فَرَكَضَهَا بِرِجْلِهِ فَقَالَ لَا تُغَرِّنِي عَنْ دِينِي حَتَّى تَمْضِيَ أَرْبَعُونَ لَيْلَةً

إسناده ضعيف جدا

أخبرنا سعيد بن عامر عن هشام عن جلد عن معاوية بن قرة أن امرأة لعائذ بن عمرو نفست فجاءت بعدما مضت عشرون ليلة فدخلت في لحافه فقال من هذه قالت أنا فلانة إني قد تطهرت فركضها برجله فقال لا تغرني عن ديني حتى تمضي أربعون ليلة إسناده ضعيف جدا

 হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai’f)  বর্ণনাকারীঃ মু‘আবিয়াহ্ ইবনু কুররাহ্ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ৯৯১

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ৯৯. হায়েযগ্রস্ত মহিলা পবিত্রতা লাভ করার পর হায়েযকালীন পোশাকে সালাত আদায় করতে পারবে

৯৯১. ইউসুফ ইবনু মাহাক হতে বর্ণিত, ইবনু আব্বাস রাদ্বিয়াল্লাহু আনহুমা বলেন, নিফাসগ্রস্ত (প্রসূতি) মহিলা চল্লিশ দিন মতো অপেক্ষা করবে।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: এটি ৯৯৪ (অনুবাদে ৯৮৮) এ গত হয়েছে।

بَابٌ فِي الْمَرْأَةِ الْحَائِضِ تُصَلِّي فِي ثَوْبِهَا إِذَا طَهُرَتْ

أَخْبَرَنَا أَبُو نُعَيْمٍ حَدَّثَنَا أَبُو عَوَانَةَ عَنْ أَبِي بِشْرٍ عَنْ يُوسُفَ بْنِ مَاهَكَ عَنْ ابْنِ عَبَّاسٍ قَالَ النُّفَسَاءُ تَجْلِسُ نَحْوًا مِنْ أَرْبَعِينَ يَوْمًا

أخبرنا أبو نعيم حدثنا أبو عوانة عن أبي بشر عن يوسف بن ماهك عن ابن عباس قال النفساء تجلس نحوا من أربعين يوما

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ ইউসুফ ইবনু মাহাক (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ৯৯২

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ৯৯. হায়েযগ্রস্ত মহিলা পবিত্রতা লাভ করার পর হায়েযকালীন পোশাকে সালাত আদায় করতে পারবে

৯৯২. (অপর সূত্রে) ইউসুফ ইবনু মাহাক হতে বর্ণিত, ইবনু আব্বাস রাদ্বিয়াল্লাহু আনহুমা বলেন, নিফাসগ্রস্ত (প্রসূতি) মহিলা চল্লিশ দিন মতো অপেক্ষা করবে।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এটি পূর্বের হাদীসটির পুনরাবৃত্তি।

 

তাখরীজ: পূর্ণ তাখরীজের জন্য আগের হাদীসটি দেখুন।

بَابٌ فِي الْمَرْأَةِ الْحَائِضِ تُصَلِّي فِي ثَوْبِهَا إِذَا طَهُرَتْ

أَخْبَرَنَا عَمْرُو بْنُ عَوْنٍ أَخْبَرَنَا أَبُو عَوَانَةَ عَنْ أَبِي بِشْرٍ عَنْ يُوسُفَ بْنِ مَاهَكَ عَنْ ابْنِ عَبَّاسٍ قَالَ النُّفَسَاءُ تَنْتَظِرُ نَحْوًا مِنْ أَرْبَعِينَ يَوْمًا

أخبرنا عمرو بن عون أخبرنا أبو عوانة عن أبي بشر عن يوسف بن ماهك عن ابن عباس قال النفساء تنتظر نحوا من أربعين يوما

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ ইউসুফ ইবনু মাহাক (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ৯৯৩

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ৯৯. হায়েযগ্রস্ত মহিলা পবিত্রতা লাভ করার পর হায়েযকালীন পোশাকে সালাত আদায় করতে পারবে

৯৯৩. মু’তামির তার পিতা হতে বর্ণনা করেন, হাসান রাহি. বলেন, নিফাসগ্রস্ত (প্রসূতি) মহিলা যে রক্ত দেখতে পায়, সে চল্লিশ রাত অপেক্ষা করবে। তারপর সে সালাত আদায় করবে। তিনি বলেন: এবং শা’বী (এ সম্পর্কে) বলেন: (সেই মহিলা) দু’মাস (অপেক্ষা করবে), তারপর (ও স্রাব চলতে থাকলে) সে ইসতিহাযাগ্রস্ত মহিলার স্থলাভিষিক্ত হবে।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এ আছার (হাদীস) দু’টির সনদ একই। আর এ সনদটি জাইয়্যেদ।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ৪/৩৬৭-৩৬৮।

بَابٌ فِي الْمَرْأَةِ الْحَائِضِ تُصَلِّي فِي ثَوْبِهَا إِذَا طَهُرَتْ

أَخْبَرَنَا مُوسَى بْنُ خَالِدٍ حَدَّثَنَا مُعْتَمِرٌ عَنْ أَبِيهِ أَنَّ الْحَسَنَ قَالَ فِي النُّفَسَاءِ الَّتِي تَرَى الدَّمَ تَرَبَّصُ أَرْبَعِينَ لَيْلَةً ثُمَّ تُصَلِّي وَقَالَ الشَّعْبِيُّ شَهْرَيْنِ ثُمَّ هِيَ بِمَنْزِلَةِ الْمُسْتَحَاضَةِ

 

أثران بإسناد واحد وهو أسناد جيد

أخبرنا موسى بن خالد حدثنا معتمر عن أبيه أن الحسن قال في النفساء التي ترى الدم تربص أربعين ليلة ثم تصلي وقال الشعبي شهرين ثم هي بمنزلة المستحاضة أثران بإسناد واحد وهو أسناد جيد

 হাদিসের মানঃ হাসান (Hasan)  বর্ণনাকারীঃ মু’তামির (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ৯৯৪

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ৯৯. হায়েযগ্রস্ত মহিলা পবিত্রতা লাভ করার পর হায়েযকালীন পোশাকে সালাত আদায় করতে পারবে

৯৯৪. আলা’ ইবনুল হারিছ হতে বর্ণিত, মাকহুল বলেন, ছেলে সন্তান হলে মহিলা তিরিশ দিন অপেক্ষা করবে; আর মেয়ে সন্তান হলে চল্লিশ দিন অপেক্ষা করবে। এর অর্থ: নিফাসগ্রস্ত (প্রসূতি) মহিলা।

মারওয়ান বলেন: এটি সাঈদ ইবনু আব্দুল আযীযেরও মত। আর আওযাঈ বলেন: তারা (ছেলে-মেয়ে) উভয়ে সমান।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: এটি আমি আর অন্য কোথাও পাইনি।

بَابٌ فِي الْمَرْأَةِ الْحَائِضِ تُصَلِّي فِي ثَوْبِهَا إِذَا طَهُرَتْ

أَخْبَرَنَا مَرْوَانُ بْنُ مُحَمَّدٍ حَدَّثَنَا مُحَمَّدُ بْنُ شُعَيْبٍ حَدَّثَنَا إِبْرَاهِيمُ بْنُ سُلَيْمَانَ الْأَفْطَسُ قَالَ سَمِعْتُ الْعَلَاءَ بْنَ الْحَارِثِ عَنْ مَكْحُولٍ قَالَ الْمَرْأَةُ تَنْتَظِرُ مِنْ الْغُلَامِ ثَلَاثِينَ يَوْمًا وَمِنْ الْجَارِيَةِ أَرْبَعِينَ يَوْمًا يَعْنِي النُّفَسَاءَ قَالَ مَرْوَانُ هُوَ قَوْلُ سَعِيدِ بْنِ عَبْدِ الْعَزِيزِ وَقَالَ الْأَوْزَاعِيُّ هُمَا سَوَاءٌ

 

إسناده صحيح

أخبرنا مروان بن محمد حدثنا محمد بن شعيب حدثنا إبراهيم بن سليمان الأفطس قال سمعت العلاء بن الحارث عن مكحول قال المرأة تنتظر من الغلام ثلاثين يوما ومن الجارية أربعين يوما يعني النفساء قال مروان هو قول سعيد بن عبد العزيز وقال الأوزاعي هما سواء إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ আলা’ ইবনুল হারিস (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ৯৯৫

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ৯৯. হায়েযগ্রস্ত মহিলা পবিত্রতা লাভ করার পর হায়েযকালীন পোশাকে সালাত আদায় করতে পারবে

৯৯৫. ইউনুস থেকে বর্ণিত, হাসান রাহি. বলেন, যদি সে (গর্ভবতী) নারী প্রসবের নিকটবর্তী সময়ে দু’-একদনি রক্ত দেখে, তবে তা নিফাসগ্রস্ত মহিলা বলে গণ্য হবে।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: আমি এটি এখানে ব্যতীত আর কোথাও পাইনি।

بَابٌ فِي الْمَرْأَةِ الْحَائِضِ تُصَلِّي فِي ثَوْبِهَا إِذَا طَهُرَتْ

أَخْبَرَنَا مُحَمَّدُ بْنُ عَبْدِ اللَّهِ الرَّقَاشِيُّ حَدَّثَنَا وُهَيْبٌ حَدَّثَنِي يُونُسُ عَنْ الْحَسَنِ قَالَ إِذَا رَأَتْ الدَّمَ عِنْدَ الطَّلْقِ يَوْمًا أَوْ يَوْمَيْنِ فَهُوَ مِنْ النِّفَاسِ

إسناده صحيح

أخبرنا محمد بن عبد الله الرقاشي حدثنا وهيب حدثني يونس عن الحسن قال إذا رأت الدم عند الطلق يوما أو يومين فهو من النفاس إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ ইউনূস বিন উবাইদ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ৯৯৬

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ৯৯. হায়েযগ্রস্ত মহিলা পবিত্রতা লাভ করার পর হায়েযকালীন পোশাকে সালাত আদায় করতে পারবে

৯৯৬. ইবনু জুরাইজ হতে বর্ণিত, এমন গর্ভবতী মহিলা, যার প্রসব আসন্ন, সে যদি রক্ত দেখতে পায়, তার সম্পর্কে আতা’ রাহি. বলেন, একজন ইসতিহাযাগ্রস্ত মহিলা যা করে, সেও তাই করবে।[1]

 

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ যয়ীফ। ইবনু জুরাইজ আন’আন পদ্ধতিতে এটি বর্ণনা করেছেন। আর তিনি মুদাল্লিস। কিন্তু এটি ‘হাদ্দাছানা’ পদ্ধতিতে বর্ণনা করেছেন, আব্দুর রাযযাক নং ১২১২ তে।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ২/২১৩।

بَابٌ فِي الْمَرْأَةِ الْحَائِضِ تُصَلِّي فِي ثَوْبِهَا إِذَا طَهُرَتْ

أَخْبَرَنَا عَبْدُ اللَّهِ بْنُ مُحَمَّدٍ حَدَّثَنَا عَبْدُ اللَّهِ بْنُ الْمُبَارَكِ عَنْ ابْنِ جُرَيْجٍ عَنْ عَطَاءٍ فِي الْحَامِلِ تَرَى الدَّمَ وَهِيَ تَطْلُقُ قَالَ تَصْنَعُ مَا تَصْنَعُ الْمُسْتَحَاضَةُ

إسناده ضعيف فيه عنعنة ابن جريج

أخبرنا عبد الله بن محمد حدثنا عبد الله بن المبارك عن ابن جريج عن عطاء في الحامل ترى الدم وهي تطلق قال تصنع ما تصنع المستحاضة إسناده ضعيف فيه عنعنة ابن جريج

 হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai’f)  বর্ণনাকারীঃ ইবনু জুরায়জ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ৯৯৭

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০০. কোনো মহিলা ‘জুনুবী’ হয়, এর পরপরই তার হায়েয আসে

৯৯৭. মুগীরাহ হতে বর্ণিত, এমন মহিলা যে, ’জুনুবী’ হয়, আর এর পরপরই তার হায়েয আসে- এমন মহিলা সম্পর্কে ইবরাহীম রাহি. বলেন, তাকে (জানাবাতের ফরয) গোসল করতে হবে।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ১/৭৭; আব্দুর রাযযাক নং ১০৫৯, ১০৬০ সহীহ সনদে। এটি ১০০৬ (অনুবাদে ১০০০) নং এ আসছে। সেখানে পূর্ণ তারখরীজ দেখুন।

بَابُ الْمَرْأَةِ تَجْنُبُ ثُمَّ تَحِيضُ

أَخْبَرَنَا مُحَمَّدُ بْنُ يُوسُفَ حَدَّثَنَا سُفْيَانُ عَنْ مُغِيرَةَ عَنْ إِبْرَاهِيمَ فِي الْمَرْأَةِ تُجْنِبُ ثُمَّ تَحِيضُ قَالَ تَغْتَسِلُ

إسناده صحيح

أخبرنا محمد بن يوسف حدثنا سفيان عن مغيرة عن إبراهيم في المرأة تجنب ثم تحيض قال تغتسل إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ মুগীরাহ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ৯৯৮

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০০. কোনো মহিলা ‘জুনুবী’ হয়, এর পরপরই তার হায়েয আসে

৯৯৮. হিশাম রাহি. হাসান রাহি. হতে অনুরূপ বর্ণনা করেছেন।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদটি আগের হাদীসটির সনদের অনুরূপ (তথা সহীহ)।

 

তাখরীজ: আব্দুর রাযযাক নং ১০৫৯, ১৩০০ সহীহ সনদে; এটি সামনে ১০০৮ (অনুবাদে ১০০২) নং এ আসছে।

بَابُ الْمَرْأَةِ تَجْنُبُ ثُمَّ تَحِيضُ

أَخْبَرَنَا مُحَمَّدُ بْنُ يُوسُفَ حَدَّثَنَا سُفْيَانُ عَنْ هِشَامٍ عَنْ الْحَسَنِ مِثْلَهُ

إسناده صحيح

أخبرنا محمد بن يوسف حدثنا سفيان عن هشام عن الحسن مثله إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ হিশাম ইবন হাসান (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ৯৯৯

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০০. কোনো মহিলা ‘জুনুবী’ হয়, এর পরপরই তার হায়েয আসে

৯৯৯. আলা ইবনুল মুসাইয়্যিব হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, আতা রাহি. বলেছেন, হায়েয (জানাবাত হতে) অনেক বেশি গুরত্বপূর্ণ বিষয়।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: হাদীসটি সহীহ।

 

তাখরীজ: আব্দুর রাযযাক নং ১০৫৯, ১০৬০, ১২৯৯ সহীহ সনদে।

بَابُ الْمَرْأَةِ تَجْنُبُ ثُمَّ تَحِيضُ

أَخْبَرَنَا مُحَمَّدُ بْنُ يُوسُفَ حَدَّثَنَا سُفْيَانُ عَنْ الْعَلَاءِ بْنِ الْمُسَيَّبِ عَنْ عَطَاءٍ قَالَ الْحَيْضُ أَكْبَرُ

إسناده صحيح

أخبرنا محمد بن يوسف حدثنا سفيان عن العلاء بن المسيب عن عطاء قال الحيض أكبر إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ আলা ইবনুল মুসাইয়্যিব (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০০০

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০০. কোনো মহিলা ‘জুনুবী’ হয়, এর পরপরই তার হায়েয আসে

১০০০. মুগীরাহ হতে বর্ণিত, এমন মহিলা যার স্বামী তার সাথে মিলিত হলো, এরপর তার হায়েয হলো- এমন মহিলা সম্পর্কে ইবরাহীম রাহি. বলেন, ’সে গোসল করবে’- এটাই আমার নিকট অধিক পছন্দনীয়।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: এটি ১০০৩ (অনুবাদে ৯৯৭)

بَابُ الْمَرْأَةِ تَجْنُبُ ثُمَّ تَحِيضُ

أَخْبَرَنَا سَعِيدُ بْنُ عَامِرٍ عَنْ شُعْبَةَ عَنْ مُغِيرَةَ عَنْ إِبْرَاهِيمَ فِي رَجُلٍ غَشِيَ امْرَأَتَهُ فَحَاضَتْ فَقَالَ تَغْتَسِلُ أَحَبُّ إِلَيَّ

أثر صحيح

أخبرنا سعيد بن عامر عن شعبة عن مغيرة عن إبراهيم في رجل غشي امرأته فحاضت فقال تغتسل أحب إلي أثر صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ মুগীরাহ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০০১

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০০. কোনো মহিলা ‘জুনুবী’ হয়, এর পরপরই তার হায়েয আসে

১০০১. হাজ্জাজ হতে বর্ণিত, আতা ও (ইবরাহীম) আন নাখঈ’ উভয়ে বলেন, সে যেন জানাবাতের গোসল করে।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ যয়ীফ। এ সনদের (প্রথম) হাজ্জাজ হলেন, ইবনু মিনহাল। আর (দ্বিতীয়) হাজ্জাজ ইবন আরতাহ, যিনি যয়ীফ।

 

তাখরীজ: ((মুহাক্বিক্ব এর কোনো তাখরীজ করেননি-অনুবাদক।))

بَابُ الْمَرْأَةِ تَجْنُبُ ثُمَّ تَحِيضُ

أَخْبَرَنَا حَجَّاجٌ حَدَّثَنَا حَمَّادٌ عَنْ حَجَّاجٍ عَنْ عَطَاءٍ وَالنَّخَعِيِّ قَالَا لِتَغْتَسِلْ مِنْ الْجَنَابَةِ

 

إسناده ضعيف حجاج هو: ابن المنهال وحماد هو: ابن سلمة وحجاج هو: ابن أرطاة وهو سبب ضعف هذا الإسناد

أخبرنا حجاج حدثنا حماد عن حجاج عن عطاء والنخعي قالا لتغتسل من الجنابة إسناده ضعيف حجاج هو: ابن المنهال وحماد هو: ابن سلمة وحجاج هو: ابن أرطاة وهو سبب ضعف هذا الإسناد

 হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai’f)  বর্ণনাকারীঃ হাজ্জাজ ইবনু আরতাহ  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০০২

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০০. কোনো মহিলা ‘জুনুবী’ হয়, এর পরপরই তার হায়েয আসে

১০০২. আমির আল আহওয়াল হতে, তিনি হাসান রাহি. হতে অনুরূপ বর্ণনা করেছেন।[1]

[1] এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: এটি ১০০৪ (অনুবাদে ৯৯৮) নং এ গত হয়েছে।

بَابُ الْمَرْأَةِ تَجْنُبُ ثُمَّ تَحِيضُ

حَدَّثَنَا حَجَّاجٌ عَنْ حَمَّادٍ عَنْ عَامِرٍ الْأَحْوَلِ عَنْ الْحَسَنِ مِثْلَ ذَلِكَ

إسناده صحيح

حدثنا حجاج عن حماد عن عامر الأحول عن الحسن مثل ذلك إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ আমির আল আহওয়াল (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০০৩

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০০. কোনো মহিলা ‘জুনুবী’ হয়, এর পরপরই তার হায়েয আসে

১০০৩. আলা’ ইবনুল মুসাইয়্যিব বলেন, আমি এমন মহিলা সম্পর্কে হাম্মাদ রাহি.কে জিজ্ঞেস করেছিলাম, তিনি বলেন, ইবরাহীম রাহি. বলেন, সে গোসল করবে।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: এটি ১০০৩ (আমাদের অনুবাদে ৯৯৭) নং এ গত হয়েছে। আরও বর্ণিত হয়েছে, ইবনু আবী শাইবা ১/৭৭।

بَابُ الْمَرْأَةِ تَجْنُبُ ثُمَّ تَحِيضُ

أَخْبَرَنَا الْمُعَلَّى بْنُ أَسَدٍ حَدَّثَنَا عَبْدُ الْوَاحِدِ بْنُ زِيَادٍ حَدَّثَنَا الْعَلَاءُ بْنُ الْمُسَيَّبِ قَالَ سُئِلَ عَنْهَا حَمَّادٌ فَقَالَ قَالَ إِبْرَاهِيمُ تَغْتَسِلُ

إسناده صحيح

أخبرنا المعلى بن أسد حدثنا عبد الواحد بن زياد حدثنا العلاء بن المسيب قال سئل عنها حماد فقال قال إبراهيم تغتسل إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ আলা ইবনুল মুসাইয়্যিব (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০০৪

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০০. কোনো মহিলা ‘জুনুবী’ হয়, এর পরপরই তার হায়েয আসে

১০০৪. মুহাম্মদ ইবনু সালিম হতে বর্ণিত, শা’বী রাহি. বলেন, সে মহিলা গোসল করবে।’[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ যয়ীফ। মুহাম্মদ ইবনু সালিমের হাদীসে কোনো কিছুই ঠিক নেই।

 

তাখরীজ: আমি এটি অন্য কোথাও পাইনি। দেখুন, ইবনু আবী শাইবা ১/৭৭।

بَابُ الْمَرْأَةِ تَجْنُبُ ثُمَّ تَحِيضُ

حَدَّثَنَا إِبْرَاهِيمُ بْنُ مُوسَى عَنْ ابْنِ فُضَيْلٍ عَنْ مُحَمَّدِ بْنِ سَالِمٍ عَنْ الشَّعْبِيِّ قَالَ تَغْتَسِلُ

إسناده ضعيف حديث محمد بن سالم لا يسوى شيئا

حدثنا إبراهيم بن موسى عن ابن فضيل عن محمد بن سالم عن الشعبي قال تغتسل إسناده ضعيف حديث محمد بن سالم لا يسوى شيئا

 হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai’f)  বর্ণনাকারীঃ মুহাম্মদ ইবনু সালিম  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০০৫

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০১. হায়িযগ্রস্ত মহিলা সালাতের ওয়াক্তে ওযু করবে

১০০৫. ইয়াহইয়া ইবনু আইয়্যুব বলেন, আমি হাকাম ইবনু উতাইবাহ রাহি.কে বলতে শুনেছি, মহিলাদের এ বিষয়টি লোকদেরকে পছন্দনীয় ছিলো যে, হায়িযগ্রস্ত মহিলা সালাতের ওয়াক্ত হলে সালাতের ওযুর ন্যায় ওযু করবে, আল্লাহর তাসবীহ (’সুবহানাল্লাহ’) পাঠ করবে এবং তাকবীর (আল্লাহর বড়ত্ব – আল্লাহু আকবার) পাঠ করবে।[1]

 

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: আমি এ সনদে এটি আর কোথাও পাইনি। তবে ইবনু আবী শাইবা ২/২৪৩ এ শু’বাহ হতে বর্ণনা করেন, আমি হাকাম ও হাম্মাদকে এ ব্যাপারে জিজ্ঞেস করলাম। তখন তারা দু’জন এটি অপছন্দ করলেন’।

بَابُ: الْحَائِضِ تَوَضَّأُ عِنْدَ وَقْتِ الصَّلَاةِ

أَخْبَرَنَا مُحَمَّدُ بْنُ يُوسُفَ حَدَّثَنَا يَحْيَى بْنُ أَيُّوبَ قَالَ سَمِعْتُ الْحَكَمَ بْنَ عُتَيْبَةَ يَقُولُ كَانَ يُعْجِبُهُمْ فِي الْمَرْأَةِ الْحَائِضِ أَنْ تَوَضَّأَ وُضُوءَهَا لِلصَّلَاةِ ثُمَّ تُسَبِّحَ اللَّهَ وَتُكَبِّرَهُ فِي وَقْتِ الصَّلَاةِ

إسناده صحيح

أخبرنا محمد بن يوسف حدثنا يحيى بن أيوب قال سمعت الحكم بن عتيبة يقول كان يعجبهم في المرأة الحائض أن توضأ وضوءها للصلاة ثم تسبح الله وتكبره في وقت الصلاة إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ ইয়াহইয়া ইবনু আইয়্যুব (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০০৬

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০১. হায়িযগ্রস্ত মহিলা সালাতের ওয়াক্তে ওযু করবে

১০০৬. সুলাইমান আত তাইমী বলেন, আমি আবু কিলাবাহ রাহি.কে বললাম, হায়িযগ্রস্ত মহিলা কি প্রত্যেক সালাতের ওয়াক্তে ওযু করবে এবং আল্লাহর যিকির করবে? তিনি বললেন, আমি এর কোনো ভিত্তি পাইনি।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ২/৩৪২… সহীহ সনদে।

بَابُ: الْحَائِضِ تَوَضَّأُ عِنْدَ وَقْتِ الصَّلَاةِ

أَخْبَرَنَا مُحَمَّدُ بْنُ يُوسُفَ حَدَّثَنَا سُفْيَانُ عَنْ سُلَيْمَانَ التَّيْمِيِّ قَالَ قُلْتُ لِأَبِي قِلَابَةَ الْحَائِضُ تَتَوَضَّأُ عِنْدَ وَقْتِ كُلِّ صَلَاةٍ وَتَذْكُرُ اللَّهَ فَقَالَ مَا وَجَدْتُ لِهَذَا أَصْلًا

إسناده صحيح

أخبرنا محمد بن يوسف حدثنا سفيان عن سليمان التيمي قال قلت لأبي قلابة الحائض تتوضأ عند وقت كل صلاة وتذكر الله فقال ما وجدت لهذا أصلا إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ সুলাইমান আত তাইমী (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০০৭

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০১. হায়িযগ্রস্ত মহিলা সালাতের ওয়াক্তে ওযু করবে

১০০৭. উক্ববাহ ইবনু আমির আল জুহানী রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি হায়িযগ্রস্ত মহিলাকে প্রত্যেক সালাতের সময় ওযু করে তার সালাতের স্থানে বসে আল্লাহর যিকির ও তাসবীহ পড়ার নির্দেশ দিতেন।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: খালিদ ইবনু ইয়াযীদ আল সিদ্দিকী ও তার পিতা ইয়াযীদ এর কোনো জীবনী আমি পাইনি।

 

তাখরীজ: তবে আব্দুল্লাহ ইবনু ইয়াযীদ আল মুকরী’ সূত্রে এটি ইবনু আবী শাইবা ২/৩৪৩ এ বর্ণনা করেছেন।

بَابُ: الْحَائِضِ تَوَضَّأُ عِنْدَ وَقْتِ الصَّلَاةِ

أَخْبَرَنَا عَبْدُ اللَّهِ بْنُ يَزِيدَ حَدَّثَنَا سَعِيدُ بْنُ أَبِي أَيُّوبَ قَالَ حَدَّثَنِي خَالِدُ بْنُ يَزِيدَ الصَّدَفِيُّ عَنْ أَبِيهِ عَنْ عُقْبَةَ بْنِ عَامِرٍ الْجُهَنِيِّ أَنَّهُ كَانَ يَأْمُرُ الْمَرْأَةَ الْحَائِضَ عِنْدَ أَوَانِ الصَّلَاةِ أَنْ تَوَضَّأَ وَتَجْلِسَ بِفِنَاءِ مَسْجِدِهَا فَتَذْكُرَ اللَّهَ وَتُسَبِّحَ

أخبرنا عبد الله بن يزيد حدثنا سعيد بن أبي أيوب قال حدثني خالد بن يزيد الصدفي عن أبيه عن عقبة بن عامر الجهني أنه كان يأمر المرأة الحائض عند أوان الصلاة أن توضأ وتجلس بفناء مسجدها فتذكر الله وتسبح

 হাদিসের মানঃ তাহকীক অপেক্ষমাণ  বর্ণনাকারীঃ উকবাহ ইবনু আমির (রাঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০০৮

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০১. হায়িযগ্রস্ত মহিলা সালাতের ওয়াক্তে ওযু করবে

১০০৮. আব্দুল মালিক বর্ণনা করেন, ’হায়িযগ্রস্ত মহিলা কুরআন পাঠ করবে কি-না’ এ সম্পর্কে আতা রাহি. বলেন, না, তবে আয়াতের অংশবিশেষ পড়তে পারে। তবে, সে প্রত্যেক সালাতের সময় ওযু করবে, কিবলাহ মুখী হবে এবং তাসবীহ-তাকবীর পাঠ করবে এবং আল্লাহর নিকট দু’আ করবে।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ২/৩৪২; এটি ১০৩৯ (অনুবাদে ১০৩৩) নং এ আসছে।

بَابُ: الْحَائِضِ تَوَضَّأُ عِنْدَ وَقْتِ الصَّلَاةِ

حَدَّثَنَا يَعْلَى حَدَّثَنَا عَبْدُ الْمَلِكِ عَنْ عَطَاءٍ فِي الْمَرْأَةِ الْحَائِضِ أَتَقْرَأُ قَالَ لَا إِلَّا طَرَفَ الْآيَةِ وَلَكِنْ تَوَضَّأُ عِنْدَ وَقْتِ كُلِّ صَلَاةٍ ثُمَّ تَسْتَقْبِلُ الْقِبْلَةَ وَتُسَبِّحُ وَتُكَبِّرُ وَتَدْعُو اللَّهَ

إسناده صحيح

حدثنا يعلى حدثنا عبد الملك عن عطاء في المرأة الحائض أتقرأ قال لا إلا طرف الآية ولكن توضأ عند وقت كل صلاة ثم تستقبل القبلة وتسبح وتكبر وتدعو الله إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ আব্দুল মালিক (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০০৯

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০১. হায়িযগ্রস্ত মহিলা সালাতের ওয়াক্তে ওযু করবে

১০০৯. ইয়াহইয়া ইবনু আবী আমর আশ শাইবানী, যিনি রামলাহ’র অধিবাসী তিনি বর্ণনা করেন, মাকহুল বলেছেন, হায়িযগ্রস্ত মহিলাদেরকে নির্দেশ দেওয়া হয়ে থাকে যে, সালাতের ওয়াক্তে তারা গোসল করবে, কিবলামুখী হবে এবং আল্লাহ তা’আলার যিকির করবে।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: আমি এখানে ব্যতীত এটি আর কোথাও পাইনি।

بَابُ: الْحَائِضِ تَوَضَّأُ عِنْدَ وَقْتِ الصَّلَاةِ

أَخْبَرَنَا مُحَمَّدُ بْنُ يَزِيدَ حَدَّثَنَا ضَمْرَةُ حَدَّثَنَا السَّيْبَانِيُّ وَهُوَ يَحْيَى بْنُ أَبِي عَمْرٍو مِنْ أَهْلِ الرَّمْلَةِ حَدَّثَنَا مَكْحُولٌ قَالَ تُؤْمَرُ الْحَائِضُ تَتَوَضَّأُ عِنْدَ مَوَاقِيتِ الصَّلَاةِ وَتَسْتَقْبِلُ الْقِبْلَةَ وَتَذْكُرُ اللَّهَ

إسناده صحيح

أخبرنا محمد بن يزيد حدثنا ضمرة حدثنا السيباني وهو يحيى بن أبي عمرو من أهل الرملة حدثنا مكحول قال تؤمر الحائض تتوضأ عند مواقيت الصلاة وتستقبل القبلة وتذكر الله إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ ইয়াহইয়া ইবনু আবী আমর আশ শাইবানী (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০১০

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০২. হায়িয (অতিক্রান্ত) হলে মহিলারা সিয়াম কাযা আদায় করবে কিন্তু সালাতের কাযা আদায় করবে না

১০১০. হাম্মাদ হতে বর্ণিত, ইবরাহীম রাহি. বলেন, হায়িযগ্রস্ত মহিলা ও ’জুনুবী’ মহিলা যদি সিজদা শুনতে পায় (সাজদাতুত তিলাওয়াত), তবে জুনুবী মহিলা গোসল করবে এবং সাজদা আদায় করবে, কিন্তু হায়িযগ্রস্ত মহিলা এ সাজদার কাযা আদায় করবে না। কেননা, (এ অবস্থায়) সে সালাতই আদায় করে না।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ২/৩৪০; আব্দুর রাযযাক ১২৩২ সহীহ সনদে। দেখুন, পরবর্তী সনদটি।

بَابٌ فِي الْحَائِضِ تَقْضِي الصَّوْمَ وَلَا تَقْضِي الصَّلَاةَ

أَخْبَرَنَا مُحَمَّدُ بْنُ يُوسُفَ حَدَّثَنَا سُفْيَانُ عَنْ حَمَّادٍ عَنْ إِبْرَاهِيمَ قَالَ إِذَا سَمِعَ الْحَائِضُ وَالْجُنُبُ السَّجْدَةَ يَغْتَسِلُ الْجُنُبُ وَيَسْجُدُ وَلَا تَقْضِي الْحَائِضُ لِأَنَّهَا لَا تُصَلِّي

إسناده صحيح

أخبرنا محمد بن يوسف حدثنا سفيان عن حماد عن إبراهيم قال إذا سمع الحائض والجنب السجدة يغتسل الجنب ويسجد ولا تقضي الحائض لأنها لا تصلي إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ হাম্মাদ ইবনু আবী সুলাইমান (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০১১

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০২. হায়িয (অতিক্রান্ত) হলে মহিলারা সিয়াম কাযা আদায় করবে কিন্তু সালাতের কাযা আদায় করবে না

১০১১. মুগীরাহ হতে বর্ণিত, হায়িযগ্রস্ত মহিলা সিজদা (আত-তিলাওয়াত) শুনতে পেলে, তার সম্পর্কে ইবরাহীম রাহি. বলেন: সে এ সাজদার কাযা আদায় করবে না।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এটি আগের হাদীসটির পুনরাবৃত্তি।

 

তাখরীজ: (মুহাক্বিক্ব এখানে তাখরীজের প্রয়োজন মনে করেননি-অনুবাদক)

بَابٌ فِي الْحَائِضِ تَقْضِي الصَّوْمَ وَلَا تَقْضِي الصَّلَاةَ

أَخْبَرَنَا مُحَمَّدُ بْنُ يُوسُفَ حَدَّثَنَا سُفْيَانُ عَنْ مُغِيرَةَ عَنْ إِبْرَاهِيمَ فِي الْحَائِضِ تَسْمَعُ السَّجْدَةَ قَالَ لَا تَقْضِي

إسناده صحيح

أخبرنا محمد بن يوسف حدثنا سفيان عن مغيرة عن إبراهيم في الحائض تسمع السجدة قال لا تقضي إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ মুগীরাহ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০১২

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০২. হায়িয (অতিক্রান্ত) হলে মহিলারা সিয়াম কাযা আদায় করবে কিন্তু সালাতের কাযা আদায় করবে না

১০১২. আবু মা’শার হতে বর্ণিত, ইবরাহীম রাহি. বলেন, তার উপর কোনো কিছুই (ওয়াজিব) নয়।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর রাবীগণ নির্ভরযোগ্য। তবে জা’ফর ও সাঈদ আবী উরওয়াহ থেকে কোনকিছু শোনা হতে পিছিয়ে রয়েছে। কিন্তু হাদীসটি সহীহ।

 

তাখরীজ: দেখুন পূর্বের হাদীসটি।

بَابٌ فِي الْحَائِضِ تَقْضِي الصَّوْمَ وَلَا تَقْضِي الصَّلَاةَ

أَخْبَرَنَا سَعِيدُ بْنُ عَامِرٍ وَجَعْفَرُ بْنُ عَوْنٍ عَنْ سَعِيدٍ عَنْ أَبِي مَعْشَرٍ عَنْ إِبْرَاهِيمَ قَالَ لَيْسَ عَلَيْهَا شَيْءٌ

 

رجاله ثقات غير أن سماع جعفر وسعيد من ابن أبي عروبة متأخر

أخبرنا سعيد بن عامر وجعفر بن عون عن سعيد عن أبي معشر عن إبراهيم قال ليس عليها شيء رجاله ثقات غير أن سماع جعفر وسعيد من ابن أبي عروبة متأخر

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ আবু মা’শার (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০১৩

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০২. হায়িয (অতিক্রান্ত) হলে মহিলারা সিয়াম কাযা আদায় করবে কিন্তু সালাতের কাযা আদায় করবে না

১০১৩. আল আসওয়াদ হতে বর্ণিত, আয়িশা রাদ্বিয়াল্লাহু আনহা বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নিকট থাকা অবস্থায় আমরা হায়েযগ্রস্ত হতাম, কিন্তু তিনি আমাদের মধ্যকার কোনো নারীকে সালাত পুনরায় (কাযা) আদায়ের নির্দেশ দেননি।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: উবাইদাহ ইবনু মা’তাব-এর কারণে এর সনদ যয়ীফ।

 

তাখরীজ: ইবনু মাজাহ ১৬৭০।

بَابٌ فِي الْحَائِضِ تَقْضِي الصَّوْمَ وَلَا تَقْضِي الصَّلَاةَ

أَخْبَرَنَا يَعْلَى حَدَّثَنَا عُبَيْدَةُ بْنُ مُعَتِّبٍ عَنْ إِبْرَاهِيمَ عَنْ الْأَسْوَدِ عَنْ عَائِشَةَ قَالَتْ كُنَّا نَحِيضُ عِنْدَ رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فَمَا يَأْمُرُ امْرَأَةً مِنَّا بِرَدِّ الصَّلَاةِ

إسناده ضعيف لضعف عبيدة بن معتب

أخبرنا يعلى حدثنا عبيدة بن معتب عن إبراهيم عن الأسود عن عائشة قالت كنا نحيض عند رسول الله صلى الله عليه وسلم فما يأمر امرأة منا برد الصلاة إسناده ضعيف لضعف عبيدة بن معتب

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ আসওয়াদ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০১৪

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০২. হায়িয (অতিক্রান্ত) হলে মহিলারা সিয়াম কাযা আদায় করবে কিন্তু সালাতের কাযা আদায় করবে না

১০১৪. মা’য়াযাহ রাহি. হতে বর্ণিত, এক মহিলা আয়িশা রাদ্বিয়াল্লাহু আনহাকে জিজ্ঞেস করলো, আমাদের কেউ কি তার হায়েযের দিনগুলির সালাতের কাযা আদায় করবে? তিনি বললেন: ’তুমি কি হারুরী (খারিজী)? রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সময়ে আমাদের কারো হায়েয হতো, কিন্তু তাকে কাযা আদায়ের নির্দেশ দেওয়া হতো না।’[1]

[1] তাহক্বীক্ব: হাদীসটি সহীহ।

 

তাখরীজ: সহীহ বুখারী ৩২১; সহীহ মুসলিম ৩৩৫। আমরা এর সকল সনদ ও তাখরীজ একত্র করেছি মুসনাদুল মাউসিলী নং ২৬৩৭, সহীহ ইবনু হিব্বান নং ১৩৪৯ এ।

بَابٌ فِي الْحَائِضِ تَقْضِي الصَّوْمَ وَلَا تَقْضِي الصَّلَاةَ

أَخْبَرَنَا أَبُو النُّعْمَانِ حَدَّثَنَا حَمَّادٌ عَنْ أَيُّوبَ عَنْ أَبِي قِلَابَةَ عَنْ مُعَاذَةَ أَنَّ امْرَأَةً سَأَلَتْ عَائِشَةَ أَتَقْضِي إِحْدَانَا صَلَاةَ أَيَّامِ حَيْضِهَا فَقَالَتْ أَحَرُورِيَّةٌ أَنْتِ قَدْ كَانَتْ إِحْدَانَا تَحِيضُ عَلَى عَهْدِ رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فَلَا تُؤْمَرُ بِقَضَاءٍ

حديث صحيح

أخبرنا أبو النعمان حدثنا حماد عن أيوب عن أبي قلابة عن معاذة أن امرأة سألت عائشة أتقضي إحدانا صلاة أيام حيضها فقالت أحرورية أنت قد كانت إحدانا تحيض على عهد رسول الله صلى الله عليه وسلم فلا تؤمر بقضاء حديث صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ মা’য়াযাহ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০১৫

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০২. হায়িয (অতিক্রান্ত) হলে মহিলারা সিয়াম কাযা আদায় করবে কিন্তু সালাতের কাযা আদায় করবে না

১০১৫. ইয়াযীদ আর রাশক, মা’য়াযাহ রাহি. হতে বর্ণনা করেন…। আবুন নু’মান বলেন, হাম্মাদ রাহি. যেন আউয়্যুবের হাদীসটিকে আলাদা করে রাখতেন। তারপর তিনি এটি নিয়ে আসলেন।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: ((মুহাক্বিক্ব এতে কোনো হুকুম লাগাননি। তবে সহীহ মুসলিমে বর্ণিত হয়েছে বলে উল্লেখ করেছেন। সুতরাং এটি সহীহ হওয়াই যুক্তিযুক্ত- অনুবাদক))

 

তাখরীজ: রাশকির হাদীসটি সহীহ মুসলিমে এসেছে ৩৩৫ নং এ। আরও দেখুন আগের ‍টীকা দু’টি।

بَابٌ فِي الْحَائِضِ تَقْضِي الصَّوْمَ وَلَا تَقْضِي الصَّلَاةَ

أَخْبَرَنَا أَبُو النُّعْمَانِ حَدَّثَنَا حَمَّادٌ عَنْ يَزِيدَ الرِّشْكِ عَنْ مُعَاذَةَ قَالَ أَبُو النُّعْمَانِ كَأَنَّ حَمَّادًا فَرِقَ حَدِيثَ أَيُّوبَ فَجَاءَ بِهَذَا

لم يحكم عليه المحقق

أخبرنا أبو النعمان حدثنا حماد عن يزيد الرشك عن معاذة قال أبو النعمان كأن حمادا فرق حديث أيوب فجاء بهذا لم يحكم عليه المحقق

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ ইয়াযীদ আর রাশক  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০১৬

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০২. হায়িয (অতিক্রান্ত) হলে মহিলারা সিয়াম কাযা আদায় করবে কিন্তু সালাতের কাযা আদায় করবে না

১০১৬. আতা ইবনু সায়িব হতে বর্ণিত, আমির রাহি. বলেন, যদি হায়িযগ্রস্ত মহিলা সিজদা শুনতে পায়, তবুও সে সিজদা (আত-তিলাওয়াত আদায়) করবে না।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ যয়ীফ। খালিদ ইবনু আব্দুল্লাহ আতা হতে কিছু শ্রবণ করা হতে পিছিয়ে রয়েছে। কিন্তু পরবর্তী আছারটি একে শক্তিশালী করে।

 

তাখরীজ: (মুহাক্বিক্ব এর কোনো তাখরীজ দেননি।-অনুবাদক)

بَابٌ فِي الْحَائِضِ تَقْضِي الصَّوْمَ وَلَا تَقْضِي الصَّلَاةَ

أَخْبَرَنَا عَمْرُو بْنُ عَوْنٍ عَنْ خَالِدِ بْنِ عَبْدِ اللَّهِ عَنْ عَطَاءِ بْنِ السَّائِبِ عَنْ عَامِرٍ قَالَ إِذَا سَمِعَتْ الْحَائِضُ السَّجْدَةَ فَلَا تَسْجُدْ

 

إسناده ضعيف خالد بن عبد الله متأخر السماع من عطاء

أخبرنا عمرو بن عون عن خالد بن عبد الله عن عطاء بن السائب عن عامر قال إذا سمعت الحائض السجدة فلا تسجد إسناده ضعيف خالد بن عبد الله متأخر السماع من عطاء

 হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai’f)  বর্ণনাকারীঃ আতা ইবনু সাইব (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০১৭

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০২. হায়িয (অতিক্রান্ত) হলে মহিলারা সিয়াম কাযা আদায় করবে কিন্তু সালাতের কাযা আদায় করবে না

১০১৭. খালিদ আল-হিযাই হতে বর্ণিত, আবু কিলাবাহ রাহি. বলেন, যদি হায়িযগ্রস্ত মহিলা সিজদা শুনতে পায়, তবু সে সিজদা করবে না।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: এটি আমি আর কোথাও পাইনি।

بَابٌ فِي الْحَائِضِ تَقْضِي الصَّوْمَ وَلَا تَقْضِي الصَّلَاةَ

أَخْبَرَنَا عَمْرُو بْنُ عَوْنٍ عَنْ خَالِدِ بْنِ عَبْدِ اللَّهِ عَنْ خَالِدٍ الْحَذَّاءِ عَنْ أَبِي قِلَابَةَ قَالَ لَا تَسْجُدُ الْمَرْأَةُ الْحَائِضُ إِذَا سَمِعَتْ السَّجْدَةَ

سناده صحيح

أخبرنا عمرو بن عون عن خالد بن عبد الله عن خالد الحذاء عن أبي قلابة قال لا تسجد المرأة الحائض إذا سمعت السجدة سناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ খালিদ ইবন মিহরান (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০১৮

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০২. হায়িয (অতিক্রান্ত) হলে মহিলারা সিয়াম কাযা আদায় করবে কিন্তু সালাতের কাযা আদায় করবে না

১০১৮. হাসান ইবনু উবাইদুল্লাহ হতে বর্ণিত যে, সিজদা শুনে হায়িযগ্রস্ত মহিলার সিজদা করাকে ইবরাহীম রাহি. এটি অপছন্দ করতেন।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ২/১৪।

بَابٌ فِي الْحَائِضِ تَقْضِي الصَّوْمَ وَلَا تَقْضِي الصَّلَاةَ

أَخْبَرَنَا عَمْرُو بْنُ عَوْنٍ عَنْ خَالِدٍ عَنْ الْحَسَنِ بْنِ عُبَيْدِ اللَّهِ عَنْ إِبْرَاهِيمَ أَنَّهُ كَانَ يَكْرَهُ لِلْحَائِضِ أَنْ تَسْجُدَ إِذَا سَمِعَتْ السَّجْدَةَ

إسناده صحيح

أخبرنا عمرو بن عون عن خالد عن الحسن بن عبيد الله عن إبراهيم أنه كان يكره للحائض أن تسجد إذا سمعت السجدة إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ হাসান ইবনু উবাইদুল্লাহ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০১৯

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০২. হায়িয (অতিক্রান্ত) হলে মহিলারা সিয়াম কাযা আদায় করবে কিন্তু সালাতের কাযা আদায় করবে না

১০১৯. আবু গালিব ’ইজলান বলেন, আমি ইবনু আব্বাস রাদ্বিয়াল্লাহু আনহুমাকে এ বিষয়ে প্রশ্ন করেছিলাম যে, হায়িয ও নিফাসগ্রস্ত মহিলারা কি পবিত্রতা লাভ করার পর (হায়েযকালীন পরিত্যক্ত) সালাতের কাযা করবে? তিনি বললেন: ’এটি নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের স্ত্রীগণেরও হতো; যদি তারা একাজ (সালাতের কাযা) করতেন, তবে আমরাও আমাদের স্ত্রীদেরকে এর নির্দেশ দিতাম।[1] (যেহেতু নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাঁর স্ত্রীদেরকে হায়েযকালীন সালাতের কাযা আদায় করতে আদেশ করেননি, তাই আমরাও আমাদের স্ত্রীদেরকে এর কাযা আদায় করতে বলিনা।)

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ জাইয়্যেদ।

 

তাখরীজ: আমি এটি এখানে ব্যতীত অন্য কোথাও পাইনি।

بَابٌ فِي الْحَائِضِ تَقْضِي الصَّوْمَ وَلَا تَقْضِي الصَّلَاةَ

أَخْبَرَنَا يَعْلَى عَنْ مُحَمَّدِ بْنِ عَوْنٍ عَنْ أَبِي غَالِبٍ عَجْلَانَ قَالَ سَأَلْتُ ابْنَ عَبَّاسٍ عَنْ النُّفَسَاءِ وَالْحَائِضِ هَلْ تَقْضِيَانِ الصَّلَاةَ إِذَا تَطَهَّرْنَ قَالَ هُوَ ذَا أَزْوَاجُ النَّبِيِّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فَلَوْ فَعَلْنَ ذَلِكَ أَمَرْنَا نِسَاءَنَا بِذَلِكَ

إسناده جيد

أخبرنا يعلى عن محمد بن عون عن أبي غالب عجلان قال سألت ابن عباس عن النفساء والحائض هل تقضيان الصلاة إذا تطهرن قال هو ذا أزواج النبي صلى الله عليه وسلم فلو فعلن ذلك أمرنا نساءنا بذلك إسناده جيد

 হাদিসের মানঃ হাসান (Hasan)  বর্ণনাকারীঃ আবু গালিব ’ইজলান (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০২০

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০২. হায়িয (অতিক্রান্ত) হলে মহিলারা সিয়াম কাযা আদায় করবে কিন্তু সালাতের কাযা আদায় করবে না

১০২০. আব্দুর রহমান ইবনু কাসিম তার পিতা কাসিম হতে বর্ণনা করেন, তিনি বলেন, আয়িশা রাদ্বিয়াল্লাহু আনহার নিকট এক মহিলা এসে জিজ্ঞেস করলো, আমি কি হায়েয হতে পবিত্রতা লাভ করার পর হায়েযকালীন দিনগুলিতে পরিত্যক্ত সালাতসমূহের কাযা আদায় করবো? তখন আয়িশা বলেন, ’তুমি কি হারুরী (খারিজী)? রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সময়ে আমাদের কারো হায়েয হতো এবং সে পবিত্রতা লাভ করতো, কিন্তু তিনি আমাদেরকে কাযা আদায়ের নির্দেশ দিতেন না।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ যয়ীফ, লাইছ ইবনু আবী সালীম যয়ীফ। কিন্তু হাদীসটি (মুত্তাফাকুন আলাইহি) বুখারী-মুসলিমের হাদীস।

 

তাখরীজ: এটি ১০১৯, ১০২০, ১০২১ (অনুবাদে ১০১৩, ১০১৪, ২০১৫) নং এ গত হয়েছে। আর আমরা এর পূর্ণ তাখরীজ করেছি মুসনাদুল মাউসিলী নং ২৬৩৭ নং এ।

بَابٌ فِي الْحَائِضِ تَقْضِي الصَّوْمَ وَلَا تَقْضِي الصَّلَاةَ

أَخْبَرَنَا عَمْرُو بْنُ عَوْنٍ أَخْبَرَنَا خَالِدٌ عَنْ لَيْثٍ عَنْ عَبْدِ الرَّحْمَنِ بْنِ الْقَاسِمِ عَنْ أَبِيهِ قَالَ أَتَتْ امْرَأَةٌ إِلَى عَائِشَةَ فَقَالَتْ أَقْضِي مَا تَرَكْتُ مِنْ صَلَوَاتِي فِي الْحَيْضِ عِنْدَ الطُّهْرِ فَقَالَتْ عَائِشَةُ أَحَرُورِيَّةٌ أَنْتِ كُنَّا مَعَ رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فَكَانَتْ إِحْدَانَا تَحِيضُ وَتَطْهُرُ فَلَا يَأْمُرُنَا بِالْقَضَاءِ

 

إسناده ضعيف لضعف الليث بن أبي سليم ولكن الحديث متفق عليه

أخبرنا عمرو بن عون أخبرنا خالد عن ليث عن عبد الرحمن بن القاسم عن أبيه قال أتت امرأة إلى عائشة فقالت أقضي ما تركت من صلواتي في الحيض عند الطهر فقالت عائشة أحرورية أنت كنا مع رسول الله صلى الله عليه وسلم فكانت إحدانا تحيض وتطهر فلا يأمرنا بالقضاء إسناده ضعيف لضعف الليث بن أبي سليم ولكن الحديث متفق عليه

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ আব্দুর রহমান ইবনু কাসিম (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০২১

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০২. হায়িয (অতিক্রান্ত) হলে মহিলারা সিয়াম কাযা আদায় করবে কিন্তু সালাতের কাযা আদায় করবে না

১০২১. শারীক রাহি. হতে বর্ণিত, কাছীর ইবনু ইসমাঈল রাহি. বলেন, আমি ফাতিমা বিনতে আলীকে জিজ্ঞেস করলাম, আপনি কি আপনার হায়েযের দিনগুলির সালাতসমূহের কাযা আদায় করেন? তিনি বললেন, না।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ যয়ীফ, কাছীর যয়ীফ হওয়ার কারণে।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ২/৩৪০।

بَابٌ فِي الْحَائِضِ تَقْضِي الصَّوْمَ وَلَا تَقْضِي الصَّلَاةَ

أَخْبَرَنَا إِسْحَقُ بْنُ عِيسَى حَدَّثَنَا شَرِيكٌ عَنْ كَثِيرٍ أَبِي إِسْمَعِيلَ قَالَ قُلْتُ لِفَاطِمَةَ يَعْنِي بِنْتَ عَلِيٍّ أَتَقْضِينَ صَلَاةَ أَيَّامِ حَيْضِكِ قَالَتْ لَا

 

إسناده ضعيف لضعف كثير

أخبرنا إسحق بن عيسى حدثنا شريك عن كثير أبي إسمعيل قال قلت لفاطمة يعني بنت علي أتقضين صلاة أيام حيضك قالت لا إسناده ضعيف لضعف كثير

 হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai’f)  বর্ণনাকারীঃ শারীক ইবনু আবদুল্লাহ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০২২

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০২. হায়িয (অতিক্রান্ত) হলে মহিলারা সিয়াম কাযা আদায় করবে কিন্তু সালাতের কাযা আদায় করবে না

১০২২. শারীক বলেন, আমি মা’য়াযাহ রাহি. কে বলতে শুনেছি, আয়িশা রাদ্বিয়াল্লাহু আনহাকে এক মহিলা এসে জিজ্ঞেস করলো, হায়েযগ্রস্ত মহিলা (পবিত্রতা লাভ করার পর হায়েযকালীন দিনগুলিতে পরিত্যক্ত সালাতসমূহের) কাযা আদায় করবে? তখন আয়িশা বলেন, ’তুমি কি হারুরী (খারিজী)? রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের স্ত্রীগণের কারো হায়েয হতো, তখন তিনি তাদেরকে নির্দেশ দিতেন, যা (কাযা আদায় করা হতে) তাদের জন্য যথেষ্ট হতো।[1]

আব্দুল্লাহ বলেন: এর অর্থ: তারা কাযা আদায় করতেন না।[2]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: সহীহ মুসলিম ৩৩৫ (৬৮); নববী, শরহে মুসলিম ১/৬৩৯ বলেন: এটি সহীহ ব্যাখ্যা।’ পূর্ণ তাখরীজের জন্য দেখুন বিগত ১০১৯, ১০২০, ১০২১, ১০২৬ (অনুবাদে ১০১৩, ১০১৪, ১০১৫, ১০২০) নং হাদীসগুলি।

 

[2] আগের টীকাটি দেখুন।

بَابٌ فِي الْحَائِضِ تَقْضِي الصَّوْمَ وَلَا تَقْضِي الصَّلَاةَ

أَخْبَرَنَا سَعِيدُ بْنُ الرَّبِيعِ حَدَّثَنَا شُعْبَةُ عَنْ يَزِيدَ الرِّشْكِ قَالَ سَمِعْتُ مُعَاذَةَ عَنْ عَائِشَةَ سَأَلَتْهَا امْرَأَةٌ أَتَقْضِي الْحَائِضُ الصَّلَاةَ قَالَتْ أَحَرُورِيَّةٌ أَنْتِ قَدْ حِضْنَ نِسَاءُ رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فَأَمَرَهُنَّ يَجْزِينَ قَالَ عَبْد اللَّهِ مَعْنَاهُ أَنَّهُنَّ لَا يَقْضِينَ

إسناده صحيح

أخبرنا سعيد بن الربيع حدثنا شعبة عن يزيد الرشك قال سمعت معاذة عن عائشة سألتها امرأة أتقضي الحائض الصلاة قالت أحرورية أنت قد حضن نساء رسول الله صلى الله عليه وسلم فأمرهن يجزين قال عبد الله معناه أنهن لا يقضين إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০২৩

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৩. হায়িযগ্রস্ত মহিলা আল্লাহর যিকির করবে কিন্তু কুরআন পাঠ করবে না

১০২৩. মুগীরাহ হতে বর্ণিত, ইবরাহীম রাহি. বলেন: হায়িযগ্রস্ত মহিলা ও ’জুনুবী (সহবাসের কারণে অপবিত্র) ব্যক্তি আল্লাহর যিকির করতে পারবে এবং ’বিসমিল্লাহ’ও বলতে পারবে।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: আব্দুর রাযযাক নং ১৩০৫ সহীহ সনদে।

بَابُ الْحَائِضِ تَذْكُرُ اللَّهَ عَزَّ وَجَلَّ وَلَا تَقْرَأُ الْقُرْآنَ

أَخْبَرَنَا مُحَمَّدُ بْنُ يُوسُفَ حَدَّثَنَا سُفْيَانُ عَنْ مُغِيرَةَ عَنْ إِبْرَاهِيمَ قَالَ الْحَائِضُ وَالْجُنُبُ يَذْكُرَانِ اللَّهَ وَيُسَمِّيَانِ

إسناده صحيح

أخبرنا محمد بن يوسف حدثنا سفيان عن مغيرة عن إبراهيم قال الحائض والجنب يذكران الله ويسميان إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ মুগীরাহ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০২৪

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৩. হায়িযগ্রস্ত মহিলা আল্লাহর যিকির করবে কিন্তু কুরআন পাঠ করবে না

১০২৪. সুফিয়ান বলেন, আমার নিকট বর্ণনা করা হয়েছে যে, ইবরাহীম ও সাঈদ ইবনু জুবাইর রাহি. উভয়ে বলেন: ’জুনুবী’ ব্যক্তি ও হায়িয্গ্রস্ত মহিলা পূর্ণ আয়াত পাঠ করবে না, তবে হরফ পড়তে পারবে।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ যয়ীফ।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ১/১০২ যয়ীফ সনদে।

بَابُ الْحَائِضِ تَذْكُرُ اللَّهَ عَزَّ وَجَلَّ وَلَا تَقْرَأُ الْقُرْآنَ

أَخْبَرَنَا مُحَمَّدُ بْنُ يُوسُفَ حَدَّثَنَا سُفْيَانُ قَالَ بَلَغَنِي عَنْ إِبْرَاهِيمَ وَسَعِيدِ بْنِ جُبَيْرٍ أَنَّهُمَا قَالَا لَا يَقْرَأْ الْجُنُبُ وَالْحَائِضُ آيَةً تَامَّةً يَقْرَآنِ الْحَرْفَ

 

إسناده ضعيف

أخبرنا محمد بن يوسف حدثنا سفيان قال بلغني عن إبراهيم وسعيد بن جبير أنهما قالا لا يقرأ الجنب والحائض آية تامة يقرآن الحرف إسناده ضعيف

 হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai’f)  বর্ণনাকারীঃ সুফিয়ান (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০২৫

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৩. হায়িযগ্রস্ত মহিলা আল্লাহর যিকির করবে কিন্তু কুরআন পাঠ করবে না

১০২৫. ফিরাস হতে বর্ণিত, আমির রাহি. বলেন, ’জুনুবী’ ও হায়িযগ্রস্ত মহিলা কুরআন পাঠ করবে না।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ হাসান শারীক এর কারণে।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ১/১০২, ১০৩।

بَابُ الْحَائِضِ تَذْكُرُ اللَّهَ عَزَّ وَجَلَّ وَلَا تَقْرَأُ الْقُرْآنَ

أَخْبَرَنَا مُحَمَّدُ بْنُ يَزِيدَ الْبَزَّازُ حَدَّثَنَا شَرِيكٌ عَنْ فِرَاسٍ عَنْ عَامِرٍ الْجُنُبُ وَالْحَائِضُ لَا يَقْرَآنِ الْقُرْآنَ

 

إسناده حسن من أجل شريك

أخبرنا محمد بن يزيد البزاز حدثنا شريك عن فراس عن عامر الجنب والحائض لا يقرآن القرآن إسناده حسن من أجل شريك

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ ফিরাস (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০২৬

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৩. হায়িযগ্রস্ত মহিলা আল্লাহর যিকির করবে কিন্তু কুরআন পাঠ করবে না

১০২৬. হাকাম হতে বর্ণিত, ইবরাহীম রাহি. বলেন, উমার রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু ’জুনুবী’ ব্যক্তি ও হায়িযগ্রস্ত মহিলার কুরআন পাঠ অপছন্দ করতেন কিংবা নিষেধ করতেন।[1]

শু’বাহ বলেন, আমি কিতাবে (অতিরিক্ত) পেয়েছি: ’এবং হায়িযগ্রস্ত মহিলা।’

[1] তাহক্বীক্ব এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: আব্দুর রাযযাক নং ১৩০৭; ইবনু আবী শাইবা ১/১০২ সহীহ সনদে, ১/১০৩ মুনকাতি’ বা বিচ্ছিন্ন সনদে।

بَابُ الْحَائِضِ تَذْكُرُ اللَّهَ عَزَّ وَجَلَّ وَلَا تَقْرَأُ الْقُرْآنَ

أَخْبَرَنَا أَبُو الْوَلِيدِ حَدَّثَنَا شُعْبَةُ حَدَّثَنَا الْحَكَمُ عَنْ إِبْرَاهِيمَ قَالَ كَانَ عُمَرُ يَكْرَهُ أَوْ يَنْهَى أَنْ يَقْرَأَ الْجُنُبُ قَالَ شُعْبَةُ وَجَدْتُ فِي الْكِتَابِ وَالْحَائِضُ

 

إسناده صحيح

أخبرنا أبو الوليد حدثنا شعبة حدثنا الحكم عن إبراهيم قال كان عمر يكره أو ينهى أن يقرأ الجنب قال شعبة وجدت في الكتاب والحائض إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ হাকাম ইবনু সুফইয়ান (রাঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০২৭

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৩. হায়িযগ্রস্ত মহিলা আল্লাহর যিকির করবে কিন্তু কুরআন পাঠ করবে না

১০২৭. হাম্মাদ হতে বর্ণিত, ইবরাহীম রাহি. বলেন, চারটি অবস্থায় কুরআন পাঠ করবে না। ১. পায়খানায় ২. গোসলখানায় অবস্থানকালে ৩. ’জুনুবী’ অবস্থায় এবং ৪. হায়িযগ্রস্ত অবস্থায়। তবে জুনুবী ব্যক্তি ও হায়িযগ্রস্ত মহিলা এক আয়াত ও এর অনুরূপ পরিমাণ পাঠ করতে পারবে।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ১/১১৪ তবে সেখানে ‘গোসলখানায়’ এর পরিবর্তে ‘স্ত্রী সহবাসরত অবস্থায়’ আছে।

بَابُ الْحَائِضِ تَذْكُرُ اللَّهَ عَزَّ وَجَلَّ وَلَا تَقْرَأُ الْقُرْآنَ

أَخْبَرَنَا يَزِيدُ بْنُ هَارُونَ عَنْ هِشَامٍ الدَّسْتَوَائِيِّ عَنْ حَمَّادٍ عَنْ إِبْرَاهِيمَ قَالَ أَرْبَعَةٌ لَا يَقْرَءُونَ الْقُرْآنَ عِنْدَ الْخَلَاءِ وَفِي الْحَمَّامِ وَالْجُنُبُ وَالْحَائِضُ إِلَّا الْآيَةَ وَنَحْوَهَا لِلْجُنُبِ وَالْحَائِضِ

إسناده صحيح

أخبرنا يزيد بن هارون عن هشام الدستوائي عن حماد عن إبراهيم قال أربعة لا يقرءون القرآن عند الخلاء وفي الحمام والجنب والحائض إلا الآية ونحوها للجنب والحائض إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ হাম্মাদ ইবনু আবী সুলাইমান (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০২৮

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৩. হায়িযগ্রস্ত মহিলা আল্লাহর যিকির করবে কিন্তু কুরআন পাঠ করবে না

১০২৮. আতা ও হাম্মাদ হতে বর্ণিত, ইবরাহীম ও সাঈদ ইবনু জুবাইর রাহি. বলেন, হায়িযগ্রস্ত মহিলা ও জুনুবী ব্যক্তি কোনো আয়াত পড়া শুরু করলেও তা সম্পূর্ণ পড়ে শেষ করবে না।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ যয়ীফ, কারণ, হাজ্জাজ: ইবনু আরতাহ যয়ীফ।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ১/১০২।

بَابُ الْحَائِضِ تَذْكُرُ اللَّهَ عَزَّ وَجَلَّ وَلَا تَقْرَأُ الْقُرْآنَ

أَخْبَرَنَا عَبْدُ اللَّهِ بْنُ سَعِيدٍ حَدَّثَنَا أَبُو خَالِدٍ الْأَحْمَرُ عَنْ حَجَّاجٍ عَنْ عَطَاءٍ وَحَمَّادٍ عَنْ إِبْرَاهِيمَ وَسَعِيدِ بْنِ جُبَيْرٍ قَالُوا الْحَائِضُ وَالْجُنُبُ يَسْتَفْتِحُونَ الْآيَةَ وَلَا يُتِمُّونَ آخِرَهَا

 

إسناده ضعيف لضعف حجاج وهو: ابن أرطاة

أخبرنا عبد الله بن سعيد حدثنا أبو خالد الأحمر عن حجاج عن عطاء وحماد عن إبراهيم وسعيد بن جبير قالوا الحائض والجنب يستفتحون الآية ولا يتمون آخرها إسناده ضعيف لضعف حجاج وهو: ابن أرطاة

 হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai’f)  বর্ণনাকারীঃ আতা ইবনু আবী রাবাহ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০২৯

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৩. হায়িযগ্রস্ত মহিলা আল্লাহর যিকির করবে কিন্তু কুরআন পাঠ করবে না

১০২৯. আসিম আল আহওয়াল হতে বর্ণিত, আবুল আলীয়া রাহি. হায়িযগ্রস্ত মহিলা সম্পর্কে বলেন, সে কুরআন পাঠ করবে না।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ১/১০৩।

بَابُ الْحَائِضِ تَذْكُرُ اللَّهَ عَزَّ وَجَلَّ وَلَا تَقْرَأُ الْقُرْآنَ

أَخْبَرَنَا حَجَّاجٌ حَدَّثَنَا حَمَّادُ بْنُ سَلَمَةَ عَنْ عَاصِمٍ الْأَحْوَلِ عَنْ أَبِي الْعَالِيَةِ فِي الْحَائِضِ قَالَ لَا تَقْرَأُ الْقُرْآنَ

 

إسناده صحيح

أخبرنا حجاج حدثنا حماد بن سلمة عن عاصم الأحول عن أبي العالية في الحائض قال لا تقرأ القرآن إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ আসিম আল আহওয়াল (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৩০

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৩. হায়িযগ্রস্ত মহিলা আল্লাহর যিকির করবে কিন্তু কুরআন পাঠ করবে না

১০৩০. ইবনু আবী মুলাইকা হতে বর্ণিত, আয়িশাহ রাদ্বিয়াল্লাহু আনহা হায়িযগ্রস্ত অবস্থায় আসমা রাদ্বিয়াল্লাহু আনহাকে ঝাড়ফুঁক করতেন।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: (মুহাক্বিক্ব এর কোনো তাখরীজ দেননি-অনুবাদক।)

بَابُ الْحَائِضِ تَذْكُرُ اللَّهَ عَزَّ وَجَلَّ وَلَا تَقْرَأُ الْقُرْآنَ

أَخْبَرَنَا عُبَيْدُ اللَّهِ بْنُ مُوسَى وَأَبُو نُعَيْمٍ قَالَا أَخْبَرَنَا السَّائِبُ بْنُ عُمَرَ عَنْ ابْنِ أَبِي مُلَيْكَةَ أَنَّ عَائِشَةَ كَانَتْ تَرْقِي أَسْمَاءَ وَهِيَ عَارِكٌ

إسناده صحيح

أخبرنا عبيد الله بن موسى وأبو نعيم قالا أخبرنا السائب بن عمر عن ابن أبي مليكة أن عائشة كانت ترقي أسماء وهي عارك إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ ইবন আবূ মুলায়কা (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৩১

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৩. হায়িযগ্রস্ত মহিলা আল্লাহর যিকির করবে কিন্তু কুরআন পাঠ করবে না

১০৩১. হিশাম রাহি হতে বর্ণিত, কাতাদা রাহি. বলেন, জুনুবী ব্যক্তি আল্লাহর নামের যিকির করতে পারবে।’[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: আব্দুর রাযযাক নং ১৩০২।

بَابُ الْحَائِضِ تَذْكُرُ اللَّهَ عَزَّ وَجَلَّ وَلَا تَقْرَأُ الْقُرْآنَ

أَخْبَرَنَا مُسْلِمٌ حَدَّثَنَا هِشَامٌ حَدَّثَنَا قَتَادَةُ قَالَ الْجُنُبُ يَذْكُرُ اسْمَ اللَّهِ

إسناده صحيح

أخبرنا مسلم حدثنا هشام حدثنا قتادة قال الجنب يذكر اسم الله إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ হিশাম আদ-দাসতুয়ানী (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৩২

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৩. হায়িযগ্রস্ত মহিলা আল্লাহর যিকির করবে কিন্তু কুরআন পাঠ করবে না

১০৩২. ইয়াসার রাহি. হতে বর্ণিত, আবু ওয়াইল রাহি. বলেন, তার নিকট বর্ণনা করা হয়েছে যে, জুনুবী ব্যক্তি (কুরআন থেকে কিছু) পাঠ করবে না; আর হায়িযগ্রস্ত মহিলাও পাঠ করবে না এবং গোসলখানার মধ্যেও কিছু পাঠ করবে না। দু’টি অবস্থায় বান্দা আল্লাহর যিকির করবে না: পায়খানায় অবস্থানকালে এবং স্ত্রী সহবাসকালীন অবস্থায়। তবে কোনো লোক যখন স্ত্রী সহবাস করতে চাইবে, তখন ’বিসমিল্লাহ’ বলে শুরু করবে।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ১/১০২ সংক্ষেপে।

بَابُ الْحَائِضِ تَذْكُرُ اللَّهَ عَزَّ وَجَلَّ وَلَا تَقْرَأُ الْقُرْآنَ

أَخْبَرَنَا سَهْلُ بْنُ حَمَّادٍ حَدَّثَنَا شُعْبَةُ عَنْ سَيَّارٍ عَنْ أَبِي وَائِلٍ قَالَ كَانَ يُقَالُ لَا يَقْرَأُ الْجُنُبُ وَلَا الْحَائِضُ وَلَا يُقْرَأُ فِي الْحَمَّامِ وَحَالَانِ لَا يَذْكُرُ الْعَبْدُ فِيهِمَا اللَّهَ عِنْدَ الْخَلَاءِ وَعِنْدَ الْجِمَاعِ إِلَّا أَنَّ الرَّجُلَ إِذَا أَتَى أَهْلَهُ بَدَأَ فَسَمَّى اللَّهَ

أخبرنا سهل بن حماد حدثنا شعبة عن سيار عن أبي وائل قال كان يقال لا يقرأ الجنب ولا الحائض ولا يقرأ في الحمام وحالان لا يذكر العبد فيهما الله عند الخلاء وعند الجماع إلا أن الرجل إذا أتى أهله بدأ فسمى الله

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৩৩

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৩. হায়িযগ্রস্ত মহিলা আল্লাহর যিকির করবে কিন্তু কুরআন পাঠ করবে না

১০৩৩. আব্দুল মালিক রাহি. থেকে বর্ণিত, ’হায়িযগ্রস্ত মহিলার কুরআন পাঠ করা’ সম্পর্কে আতা রাহি. বলেন: না, (সে কুরআন পাঠ করবে না)। তবে সে আয়াতাংশ পাঠ করতে পারবে।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: এটি ১০১৪ (অনুবাদে ১০০৮) নং এ গত হয়েছে।

بَابُ الْحَائِضِ تَذْكُرُ اللَّهَ عَزَّ وَجَلَّ وَلَا تَقْرَأُ الْقُرْآنَ

أَخْبَرَنَا يَعْلَى حَدَّثَنَا عَبْدُ الْمَلِكِ عَنْ عَطَاءٍ فِي الْمَرْأَةِ الْحَائِضِ تَقْرَأُ قَالَ لَا إِلَّا طَرَفَ الْآيَةِ

إسناده صحيح

أخبرنا يعلى حدثنا عبد الملك عن عطاء في المرأة الحائض تقرأ قال لا إلا طرف الآية إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ আব্দুল মালিক (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৩৪

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৩. হায়িযগ্রস্ত মহিলা আল্লাহর যিকির করবে কিন্তু কুরআন পাঠ করবে না

১০৩৪. আবু হুরাইরা রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু বলেন: ’চারটি জিনিস জুনুবী ব্যক্তি ও হায়িযগ্রস্ত মহিলার উপর হারাম নয়: ১. ’সুবহানাল্লাহ’, ২. ’হামদুলিল্লাহ’ ৩. ’লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’, ৪. ’আল্লাহু আকবার’।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ জাইয়্যেদ।

 

তাখরীজ: আমি এ হাদীসটি এখানে ব্যতীত আর কোথাও পাইনি।

بَابُ الْحَائِضِ تَذْكُرُ اللَّهَ عَزَّ وَجَلَّ وَلَا تَقْرَأُ الْقُرْآنَ

أَخْبَرَنَا عَبْدُ اللَّهِ بْنُ سَعِيدٍ حَدَّثَنَا أَبُو أُسَامَةَ عَنْ الْجُرَيْرِيِّ عَنْ أَبِي عَطَّافٍ عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ قَالَ أَرْبَعٌ لَا يَحْرُمْنَ عَلَى جُنُبٍ وَلَا حَائِضٍ سُبْحَانَ اللَّهِ وَالْحَمْدُ لِلَّهِ وَلَا إِلَهَ إِلَّا اللَّهُ وَاللَّهُ أَكْبَرُ

إسناده جيد

أخبرنا عبد الله بن سعيد حدثنا أبو أسامة عن الجريري عن أبي عطاف عن أبي هريرة قال أربع لا يحرمن على جنب ولا حائض سبحان الله والحمد لله ولا إله إلا الله والله أكبر إسناده جيد

 হাদিসের মানঃ হাসান (Hasan)  বর্ণনাকারীঃ আবূ হুরায়রা (রাঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৩৫

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৪. হাযিযগ্রস্ত মহিলা সাজদা শুনতে পেলেও সিজদা করবে না

১০৩৫. মুসলিম ইবনু সাবীহ হতে বর্ণিত, যে হায়িযগ্রস্ত মহিলা (তিলাওয়াতের) সাজদা শুনতে পায়- তার সম্পর্কে ইবনু আব্বাস রাদ্বিয়াল্লাহু আনহুমাকে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি বলেন, সে সিজদা করবে না। কারণ সিজদাই সালাত।[1] (আর সালাত আদায় তার জন্য নিষিদ্ধ)

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ২/১৪।

بَابَ: الْحَائِضِ تَسْمَعُ السَّجْدةَ فَلَا تَسْجُدُ

أَخْبَرَنَا أَحْمَدُ بْنُ حُمَيْدٍ حَدَّثَنَا عَبْدُ الرَّحِيمِ بْنُ سُلَيْمَانَ حَدَّثَنَا الْحَسَنُ بْنُ عُبَيْدِ اللَّهِ عَنْ مُسْلِمِ بْنِ صُبَيْحٍ عَنْ ابْنِ عَبَّاسٍ أَنَّهُ سُئِلَ عَنْ الْحَائِضِ تَسْمَعُ السَّجْدَةَ قَالَ لَا تَسْجُدُ لِأَنَّهَا صَلَاةٌ

إسناده صحيح

أخبرنا أحمد بن حميد حدثنا عبد الرحيم بن سليمان حدثنا الحسن بن عبيد الله عن مسلم بن صبيح عن ابن عباس أنه سئل عن الحائض تسمع السجدة قال لا تسجد لأنها صلاة إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ মুসলিম ইবনু সাবীহ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৩৬

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৪. হাযিযগ্রস্ত মহিলা সাজদা শুনতে পেলেও সিজদা করবে না

১০৩৬. হাসান ইবনু উবাইদুল্লাহ হতে বর্ণিত, ইবরাহীম এবং আবু দুহা (রাহি.) উভয়ে বলেন: সে (হায়েযগ্রস্ত মহিলা) সিজদা করবে না।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ২/১৪।

بَابَ: الْحَائِضِ تَسْمَعُ السَّجْدةَ فَلَا تَسْجُدُ

أَخْبَرَنَا أَحْمَدُ بْنُ حُمَيْدٍ حَدَّثَنَا حَفْصُ بْنُ غِيَاثٍ عَنْ الْحَسَنِ بْنِ عُبَيْدِ اللَّهِ عَنْ إِبْرَاهِيمَ وَأَبِي الضُّحَى قَالَا لَا تَسْجُدُ

إسناده صحيح

أخبرنا أحمد بن حميد حدثنا حفص بن غياث عن الحسن بن عبيد الله عن إبراهيم وأبي الضحى قالا لا تسجد إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ হাসান ইবনু উবাইদুল্লাহ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৩৭

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৪. হাযিযগ্রস্ত মহিলা সাজদা শুনতে পেলেও সিজদা করবে না

১০৩৭. হাম্মাদ হতে বর্ণিত, ইবরাহীম ও সাঈদ ইবনু জুবাইর রাহি. উভয়ে বলেন, তার (হায়িযগ্রস্ত মহিলার) ও উপর এটি (সাজদা) ওয়াজিব নয়। অথচ সালাত তো এর চেয়েও অধিক গুরুত্বপূর্ণ।[1] (সেই সালাতই জন্য জায়েয নয়।)

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ যয়ীফ। এত হাজ্জাজ ইবনু আরতাহ রয়েছে, সে যয়ীফ।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ২/১৩।

بَابَ: الْحَائِضِ تَسْمَعُ السَّجْدةَ فَلَا تَسْجُدُ

أَخْبَرَنَا أَحْمَدُ بْنُ حُمَيْدٍ حَدَّثَنَا ابْنُ نُمَيْرٍ عَنْ حَجَّاجٍ عَنْ حَمَّادٍ عَنْ إِبْرَاهِيمَ وَسَعِيدِ بْنِ جُبَيْرٍ قَالَا لَيْسَ عَلَيْهَا ذَاكَ الصَّلَاةُ أَكْبَرُ مِنْ ذَلِكَ

إسناده ضعيف فيه حجاج وهو: ابن أرطاة وهو ضعيف

أخبرنا أحمد بن حميد حدثنا ابن نمير عن حجاج عن حماد عن إبراهيم وسعيد بن جبير قالا ليس عليها ذاك الصلاة أكبر من ذلك إسناده ضعيف فيه حجاج وهو: ابن أرطاة وهو ضعيف

 হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai’f)  বর্ণনাকারীঃ হাম্মাদ ইবনু আবী সুলাইমান (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৩৮

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৪. হাযিযগ্রস্ত মহিলা সাজদা শুনতে পেলেও সিজদা করবে না

১০৩৮. ইবনু জুরাইজ হতে বর্ণিত, আতা রাহি. বলেন, তাকে তো এর চেয়েও অধিক উত্তম বিষয় থেকে নিষেধ করা হয়েছে। আর তা হলো: ফরয সালাত।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ যয়ীফ। ইবনু জুরাইজ মুদাল্লিস, তিনি এটি ‘আন‘আন পদ্ধতিতে এটি বর্ণনা করেছেন। তবে মুসান্নাফে আব্দুর রাযযাকে তিনি এটি ‘আমি বলতে শুনেছি’ বলে বর্ণনা করেছেন।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ২/১৪; আব্দুর রাযযাক নং ১২৩০; আগের টীকাটি দেখুন দেখুন, কেননা, আগের এবং পরের হাদীসগুলি একে শক্তিশালী করে।

بَابَ: الْحَائِضِ تَسْمَعُ السَّجْدةَ فَلَا تَسْجُدُ

أَخْبَرَنَا أَحْمَدُ بْنُ حُمَيْدٍ حَدَّثَنَا ابْنُ الْمُبَارَكِ عَنْ ابْنِ جُرَيْجٍ عَنْ عَطَاءٍ قَالَ مُنِعَتْ خَيْرًا مِنْ ذَلِكَ الصَّلَاةَ الْمَكْتُوبَةَ

إسناده ضعيف ابن جريج قد عنعن وهو مدلس

أخبرنا أحمد بن حميد حدثنا ابن المبارك عن ابن جريج عن عطاء قال منعت خيرا من ذلك الصلاة المكتوبة إسناده ضعيف ابن جريج قد عنعن وهو مدلس

 হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai’f)  বর্ণনাকারীঃ ইবনু জুরায়জ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৩৯

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৪. হাযিযগ্রস্ত মহিলা সাজদা শুনতে পেলেও সিজদা করবে না

১০৩৯. আশ’আছ হতে বর্ণিত, হাসান রাহি. বলেন, সে (হায়েযগ্রস্ত মহিলা) সাজদা করবে না।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: আমি এটি এখানে ব্যতীত আর কোনখানে পাইনি। তবে আব্দুর রাযযাক নং ১২৩১ টি দেখতে পারেন।

بَابَ: الْحَائِضِ تَسْمَعُ السَّجْدةَ فَلَا تَسْجُدُ

أَخْبَرَنَا أَحْمَدُ بْنُ حُمَيْدٍ حَدَّثَنَا غُنْدَرٌ عَنْ أَشْعَثَ عَنْ الْحَسَنِ قَالَ لَا تَسْجُدُ

إسناده صحيح

أخبرنا أحمد بن حميد حدثنا غندر عن أشعث عن الحسن قال لا تسجد إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ আশ’আস (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৪০

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৪. হাযিযগ্রস্ত মহিলা সাজদা শুনতে পেলেও সিজদা করবে না

১০৪০. ইউনুস হতে বর্ণিত, ’যে মহিলা (হায়িযের মধ্যে) পবিত্রাবস্থা লক্ষ্য করলো, তারপর সে (তিলাওয়াতের) সিজদা শুনতে পেলো, এমন মহিলা সম্পর্কে যুহুরী রাহি. বলেন, ’সে গোসল না করা পর্যন্ত সিজদা করবে না।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: আমি এটি অন্য কোথাও পাইন। তবে আব্দুর রাযযাক নং ১২৩১ হাদীসটি দেখতে পারেন।

بَابَ: الْحَائِضِ تَسْمَعُ السَّجْدةَ فَلَا تَسْجُدُ

أَخْبَرَنَا أَحْمَدُ حَدَّثَنَا ابْنُ الْمُبَارَكِ عَنْ يُونُسَ عَنْ الزُّهْرِيِّ فِي الْمَرْأَةِ تَرَى الطُّهْرَ فَتَسْمَعُ السَّجْدَةَ قَالَ لَا تَسْجُدُ حَتَّى تَغْتَسِلَ

إسناده صحيح

أخبرنا أحمد حدثنا ابن المبارك عن يونس عن الزهري في المرأة ترى الطهر فتسمع السجدة قال لا تسجد حتى تغتسل إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ ইউনুস ইবনু ইয়াযীদ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৪১

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৪. হাযিযগ্রস্ত মহিলা সাজদা শুনতে পেলেও সিজদা করবে না

১০৪১. আব্দুল্লাহ রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম নারীদের সম্পর্কে বলেন: “তোমরা সাদাকা করো, কেননা, তোমাদের অধিকাংশই জাহান্নামের বাসিন্দা হবে। সম্ভ্রান্ত শ্রেণির নয়, এমন এক মহিলা বলে উঠলো, ইয়া রাসূলাল্লাহ! তা কি কারণে? অথবা, কিসের জন্য? কিংবা কোন্ বিষয়ে? তিনি বললেন: “তোমরা অধিক পরিমাণে লা’নত (অভিশাপ) দাও এবং স্বামীর নাফরমানী কর।” তিনি (বর্ণনাকারী) বলেন: আর আব্দুল্লাহ বললেন: নারীদের চেয়ে দীন ও বুদ্ধির ঘাটতি সম্পন্ন আর এমন কেউ নেই, যে পুরুষদের উপরে তাদের কাজকর্মে প্রাধান্য বিস্তার করে। তখন একজন লোক জিজ্ঞেস করলো: তাদের বুদ্ধির ঘাটতির বিষয়টা কী? তিনি বললেন: দু’জন নারীর সাক্ষ্যকে একজন পুরুষের সাক্ষ্যের সমান করা হয়েছে। তাকে আবার জিজ্ঞেস করা হলো: আর তাদের দীনের ঘাটতির বিষয়টা কী রকম? তিনি বললেন: সে এত দিন এত রাত বিরত থাকে, আল্লাহর জন্য কোনো সালাতই সে আদায় করতে পারে না।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ হাসান।

 

তাখরীজ: আমরা এর পূর্ণাঙ্গ তাখরীজ করেছি মুসনাদুল মাউসিলী নং ৫১১২; সহীহ ইবনু হিব্বান নং ৩৩২৩ এবং মাওয়ারিদুয যাম’আন নং ৮১৮; মুসনাদুল হুমাইদী নং ৯২ এবং এতে টীকাও সংযোজন করেছি।

بَابَ: الْحَائِضِ تَسْمَعُ السَّجْدةَ فَلَا تَسْجُدُ

أَخْبَرَنَا أَبُو زَيْدٍ سَعِيدُ بْنُ الرَّبِيعِ حَدَّثَنَا شُعْبَةُ عَنْ الْحَكَمِ قَالَ سَمِعْتُ ذَرًّا عَنْ وَائِلِ بْنِ مُهَانَةَ عَنْ عَبْدِ اللَّهِ عَنْ النَّبِيِّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ أَنَّهُ قَالَ لِلنِّسَاءِ تَصَدَّقْنَ فَإِنَّكُنَّ أَكْثَرُ أَهْلِ النَّارِ فَقَالَتْ امْرَأَةٌ لَيْسَتْ مِنْ عِلْيَةِ النِّسَاءِ لِمَ أَوْ بِمَ أَوْ فِيمَ قَالَ إِنَّكُنَّ تُكْثِرْنَ اللَّعْنَ وَتَكْفُرْنَ الْعَشِيرَ قَالَ وَقَالَ عَبْدُ اللَّهِ مَا مِنْ نَاقِصِي الدِّينِ وَالْعَقْلِ أَغْلَبَ لِلرِّجَالِ ذَوِي الْأَمْرِ عَلَى أَمْرِهِمْ مِنْ النِّسَاءِ قَالَ رَجُلٌ لِعَبْدِ اللَّهِ مَا نُقْصَانُ عَقْلِهَا قَالَ جُعِلَتْ شَهَادَةُ امْرَأَتَيْنِ بِشَهَادَةِ رَجُلٍ قَالَ سُئِلَ مَا نُقْصَانُ دِينِهَا قَالَ تَمْكُثُ كَذَا وَكَذَا مِنْ يَوْمٍ وَلَيْلَةٍ لَا تُصَلِّي لِلَّهِ صَلَاةً

 

إسناده حسن من أجل وائل بن مهانة

أخبرنا أبو زيد سعيد بن الربيع حدثنا شعبة عن الحكم قال سمعت ذرا عن وائل بن مهانة عن عبد الله عن النبي صلى الله عليه وسلم أنه قال للنساء تصدقن فإنكن أكثر أهل النار فقالت امرأة ليست من علية النساء لم أو بم أو فيم قال إنكن تكثرن اللعن وتكفرن العشير قال وقال عبد الله ما من ناقصي الدين والعقل أغلب للرجال ذوي الأمر على أمرهم من النساء قال رجل لعبد الله ما نقصان عقلها قال جعلت شهادة امرأتين بشهادة رجل قال سئل ما نقصان دينها قال تمكث كذا وكذا من يوم وليلة لا تصلي لله صلاة إسناده حسن من أجل وائل بن مهانة

 হাদিসের মানঃ হাসান (Hasan)  বর্ণনাকারীঃ আবদুল্লাহ‌ ইব্‌ন মাসউদ (রাঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৪২

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৫. হাযিযগ্রস্ত মহিলা তার পরিধেয় কাপড় পবিত্র করে সেই কাপড়েই সালাত আদায় করতে পারবে

১০৪২. আব্দুর রহমান ইবনু কাসিম তার পিতা হতে বর্ণনা করেন, আয়িশা রাদ্বিয়াল্লাহু আনহা বলেন: যখন কোনো মহিলা হায়িয হতে পবিত্রতা লাভ করে, তখন সে তার (হায়েয অবস্থায়) পরিহিত কাপড় ভালভাবে লক্ষ্য করবে; ফলে কাপড়ে কোনো অপবিত্রতা লেগে থাকলে তা ধুয়ে ফেলবে। এরপর সেই কাপড়েই সে সালাত আদায় করবে।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: সহীহ বুখারী ৩০৮; বাইহাকী ২/৪০৬-৪০৭।

بَابُ الْمَرْأَةِ الْحَائِضِ تُصَلِّي فِي ثَوْبِهَا إِذَا طَهُرَتْ

أَخْبَرَنَا مُحَمَّدُ بْنُ يُوسُفَ حَدَّثَنَا الْأَوْزَاعِيُّ عَنْ عَبْدِ الرَّحْمَنِ بْنِ الْقَاسِمِ عَنْ أَبِيهِ عَنْ عَائِشَةَ قَالَتْ إِذَا طَهُرَتْ الْمَرْأَةُ مِنْ الْحَيْضِ فَلْتَتَّبِعْ ثَوْبَهَا الَّذِي يَلِي جِلْدَهَا فَلْتَغْسِلْ مَا أَصَابَهُ مِنْ الْأَذَى ثُمَّ تُصَلِّي فِيهِ

إسناده صحيح

أخبرنا محمد بن يوسف حدثنا الأوزاعي عن عبد الرحمن بن القاسم عن أبيه عن عائشة قالت إذا طهرت المرأة من الحيض فلتتبع ثوبها الذي يلي جلدها فلتغسل ما أصابه من الأذى ثم تصلي فيه إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ আব্দুর রহমান ইবনু কাসিম (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৪৩

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৫. হাযিযগ্রস্ত মহিলা তার পরিধেয় কাপড় পবিত্র করে সেই কাপড়েই সালাত আদায় করতে পারবে

১০৪৩. আতা রাহি. থেকে বর্ণিত, আয়িশা রাদ্বিয়াল্লাহু আনহা বলেন: এমন হতো, যে আমাদের মাত্র একটি করে জামা ছিলো, যা পরিহিত অবস্থায় সে হায়েযগ্রস্ত হতো এবং সেই কাপড় পরিহিত অবস্থাই সে জুনুবী (অপবিত্র) হতো। তারপর সে কাপড়ে তার হায়েযের রক্তের ফোঁটা লেগে থাকতে দেখতো। তখন সে তাতে থুথু লাগিয়ে নখ দিয়ে ঘষে তুলে ফেলতো।[1]

[1] তহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: আবু দাউদ ৩৫৮, ৩৬৪; আব্দুর রাযযাক নং ১২২৯ সহীহ সনদে; বুখারী ৩১২; বাইহাকী ২/৪০৫।

بَابُ الْمَرْأَةِ الْحَائِضِ تُصَلِّي فِي ثَوْبِهَا إِذَا طَهُرَتْ

أَخْبَرَنَا مُحَمَّدُ بْنُ يُوسُفَ حَدَّثَنَا ابْنُ عُيَيْنَةَ عَنْ ابْنِ أَبِي نَجِيحٍ عَنْ عَطَاءٍ عَنْ عَائِشَةَ قَالَتْ كَانَ يَكُونُ لِإِحْدَانَا الدِّرْعُ فِيهِ تَحِيضُ وَفِيهِ تُجْنِبُ ثُمَّ تَرَى فِيهِ الْقَطْرَةَ مِنْ دَمِ حَيْضَتِهَا فَتَقْصَعُهُ بِرِيقِهَا

إسناده صحيح

أخبرنا محمد بن يوسف حدثنا ابن عيينة عن ابن أبي نجيح عن عطاء عن عائشة قالت كان يكون لإحدانا الدرع فيه تحيض وفيه تجنب ثم ترى فيه القطرة من دم حيضتها فتقصعه بريقها إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ আতা ইবনু আবী রাবাহ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৪৪

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৫. হাযিযগ্রস্ত মহিলা তার পরিধেয় কাপড় পবিত্র করে সেই কাপড়েই সালাত আদায় করতে পারবে

১০৪৪. হাসান রাহি. তার মাতা হতে বর্ণনা করেন, উম্মু সালামাহ রাদ্বিয়াল্লাহু আনহা বলেন, তোমাদের কারো কারো (কাপড়ের) উপরে রক্তের ফোঁটা উঠে আসে। যদি তোমাদের কারো এমন অবস্থা হয়, তাহলে সে যেনো তাতে থুথু লাগিয়ে নখ দিয়ে ঘষে তুলে ফেলে।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: আবু বাকর আল হাযালী পরিত্যক্ত (মাতরুক) খবরদাতা। (হাসানের মাতা মাজহুল (অজ্ঞাত পরিচয়))

 

তাখরীজ: আমি এ হাদীসটি এখানে ব্যতীত আর কোথাও পাইনি। তবে, উম্মু সালামার হাদীসটি ইবনু আবী শাইবা ১/৯৫ তে দেখুন।

بَابُ الْمَرْأَةِ الْحَائِضِ تُصَلِّي فِي ثَوْبِهَا إِذَا طَهُرَتْ

أَخْبَرَنَا سَهْلُ بْنُ حَمَّادٍ حَدَّثَنَا أَبُو بَكْرٍ الْهُذَلِيُّ عَنْ الْحَسَنِ عَنْ أُمِّهِ عَنْ أُمِّ سَلَمَةَ إِنَّ إِحْدَاكُنَّ تَسْبِقُهَا الْقَطْرَةُ مِنْ الدَّمِ فَإِذَا أَصَابَتْ إِحْدَاكُنَّ ذَلِكَ فَلْتَقْصَعْهُ بِرِيقِهَا

 

لم يحكم عليه المحقق

أخبرنا سهل بن حماد حدثنا أبو بكر الهذلي عن الحسن عن أمه عن أم سلمة إن إحداكن تسبقها القطرة من الدم فإذا أصابت إحداكن ذلك فلتقصعه بريقها لم يحكم عليه المحقق

 হাদিসের মানঃ তাহকীক অপেক্ষমাণ  বর্ণনাকারীঃ হাসান বাসরী (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৪৫

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৫. হাযিযগ্রস্ত মহিলা তার পরিধেয় কাপড় পবিত্র করে সেই কাপড়েই সালাত আদায় করতে পারবে

১০৪৫. মায়া’যাহ আল আদাওয়িয়্যাহ হতে বর্ণিত, আয়িশা রাদ্বিয়াল্লাহু আনহা বলেন: কোনো মহিলা (কাপড়ের) রক্ত ধোয়ার পরও যদি তা না যায়, তবে সে যেনো হলুদ রংয়ের কুসুম কিংবা জাফরাণ রং দ্বারা তাকে (কাপড়ের রক্তবর্ণকে) পরিবর্তন করে দেয়।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: আবু দাউদ ৩৫৭; তার সূত্রে বাইহাকী ২/৪০৮।

بَابُ الْمَرْأَةِ الْحَائِضِ تُصَلِّي فِي ثَوْبِهَا إِذَا طَهُرَتْ

أَخْبَرَنَا أَبُو النُّعْمَانِ حَدَّثَنَا ثَابِتُ بْنُ يَزِيدَ حَدَّثَنَا عَاصِمٌ عَنْ مُعَاذَةَ الْعَدَوِيَّةِ عَنْ عَائِشَةَ قَالَتْ إِذَا غَسَلَتْ الْمَرْأَةُ الدَّمَ فَلَمْ يَذْهَبْ فَلْتُغَيِّرْهُ بِصُفْرَةِ وَرْسٍ أَوْ زَعْفَرَانٍ

إسناده صحيح

أخبرنا أبو النعمان حدثنا ثابت بن يزيد حدثنا عاصم عن معاذة العدوية عن عائشة قالت إذا غسلت المرأة الدم فلم يذهب فلتغيره بصفرة ورس أو زعفران إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ মা’য়াযাহ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৪৬

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৫. হাযিযগ্রস্ত মহিলা তার পরিধেয় কাপড় পবিত্র করে সেই কাপড়েই সালাত আদায় করতে পারবে

১০৪৬. মা’য়াযাহ আল আদাওয়িয়্যাহ রাহি. হতে বর্ণিত, আয়িশা রাদ্বিয়াল্লাহু আনহাকে এক মহিলা জিজ্ঞেস করলো, কাপড়ে রক্ত লেগেছিল, তারপর আমি কাপড় ধোয়ার পরও তা যায়নি। এমতাবস্থায় আমি কি কাপড় কেটে ফেলবো? তিনি বলেন: (না, বরং) পানিই তা পবিত্রকারী।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: বাইহাকী ২/৪০৮।

بَابُ الْمَرْأَةِ الْحَائِضِ تُصَلِّي فِي ثَوْبِهَا إِذَا طَهُرَتْ

أَخْبَرَنَا سَعِيدُ بْنُ الرَّبِيعِ حَدَّثَنَا شُعْبَةُ عَنْ يَزِيدَ الرِّشْكِ قَالَ سَمِعْتُ مُعَاذَةَ الْعَدَوِيَّةَ عَنْ عَائِشَةَ قَالَتْ لَهَا امْرَأَةٌ الدَّمُ يَكُونُ فِي الثَّوْبِ فَأَغْسِلُهُ فَلَا يَذْهَبُ فَأُقَطِّعُهُ قَالَتْ الْمَاءُ طَهُورٌ

إسناده صحيح

أخبرنا سعيد بن الربيع حدثنا شعبة عن يزيد الرشك قال سمعت معاذة العدوية عن عائشة قالت لها امرأة الدم يكون في الثوب فأغسله فلا يذهب فأقطعه قالت الماء طهور إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ মা’য়াযাহ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৪৭

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৫. হাযিযগ্রস্ত মহিলা তার পরিধেয় কাপড় পবিত্র করে সেই কাপড়েই সালাত আদায় করতে পারবে

১০৪৭. খিলাসা ইবনু আমর রাহি. বলেন, আমি আয়িশা রাদ্বিয়াল্লাহু আনহাকে বলতে শুনেছি, আবুল কাসিম রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আমার সাথে আমার শরীরে লাগানো একই কাপড়ের নীচে শয়ন করতেন, আর তখন আমি হায়েযগ্রস্ত থাকতাম। আমার (শরীর) থেকে কোনো কিছু (হায়েযর রক্ত) তার শরীরে লেগে গেলে তিনি শুধু ঐ স্থানটুকু ধুয়ে ফেলতেন, তা বাদে বাকী অংশ ধুতেন না; এবং এ কাপড়েই সালাত আদায় করতেন। এরপর তিনি (আমার নিকট) ফিরে আসতেন। পুনরায় আমার (শরীর) থেকে কোনো কিছু (হায়েযের রক্ত) তার শরীরে লেগে গেলে তিনি অনুরূপ করতেন: তিনি শুধু ঐ স্থানটুকু ধুয়ে ফেলতেন, তা বাদে বাকী অংশ ধুতেন না; এবং এ কাপড়েই সালাত আদায় করতেন।’[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ হাসান, মুসা ইবনু মুহাম্মদ ইবনু হিব্বান এর জন্য। তবে অনেক নির্ভরযোগ্য রাবী তার অনুরূপ বর্ণনা করেছেন।

 

তাখরীজ: আমরা এর পূর্ণ তাখরীজ করেছি ও এর শাহিদ হাদীস উল্লেখ করেছি মুসনাদুল মাউসিলী নং ৪৮০২ এ।

 

(আহমাদ ৬/৪৪; আবু দাউদ ২৬৯, ২১৬৬; বাইহাকী ১/৩১৩; নাসাঈ ২৮৫, ৩৮২, ৭৭৪; বুখারী (শব্দের পরিবর্তনসহ) ৩০৮; ইবনু মাজাহ ৬৩০।)

 

এর শাহিদ রয়েছে আসমা বিনতে আবু বাকর হতে হুমাইদী নং ৩২০; শাফিঈ, আল উম্মু ১/৬৭; আব্দুর রাযযাক নং ১২২৩; আহমাদ ৬/৩৪৫, ৩৪৬; বুখারী ৩০৭; মুসলিম ২৯১; মালিক ১০৫।

 

অপর একটি শাহিদ হাদীস উম্মু কাইস হতে ইবনু হিব্বান নং ১৩৮২ তে।

بَابُ الْمَرْأَةِ الْحَائِضِ تُصَلِّي فِي ثَوْبِهَا إِذَا طَهُرَتْ

أَخْبَرَنَا أَبُو الْوَلِيدِ الطَّيَالِسِيُّ حَدَّثَنَا يَحْيَى بْنُ سَعِيدٍ الْقَطَّانُ حَدَّثَنِي جَابِرُ بْنُ صُبْحٍ قَالَ سَمِعْتُ خِلَاسَ بْنَ عَمْرٍو قَالَ سَمِعْتُ عَائِشَةَ تَقُولُ كَانَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ أَبُو الْقَاسِمِ يَكُونُ مَعِي فِي الشِّعَارِ الْوَاحِدِ وَأَنَا حَائِضٌ طَامِثٌ إِنْ أَصَابَهُ مِنِّي شَيْءٌ غَسَلَ مَا أَصَابَهُ لَمْ يَعْدُهُ إِلَى غَيْرِهِ وَصَلَّى فِيهِ ثُمَّ يَعُودُ وَإِنْ أَصَابَهُ مِنِّي شَيْءٌ فَعَلَ مِثْلَ ذَلِكَ غَسَلَ مَكَانَهُ لَمْ يَعْدُهُ إِلَى غَيْرِهِ وَصَلَّى فِيهِ

أخبرنا أبو الوليد الطيالسي حدثنا يحيى بن سعيد القطان حدثني جابر بن صبح قال سمعت خلاس بن عمرو قال سمعت عائشة تقول كان رسول الله صلى الله عليه وسلم أبو القاسم يكون معي في الشعار الواحد وأنا حائض طامث إن أصابه مني شيء غسل ما أصابه لم يعده إلى غيره وصلى فيه ثم يعود وإن أصابه مني شيء فعل مثل ذلك غسل مكانه لم يعده إلى غيره وصلى فيه

 হাদিসের মানঃ হাসান (Hasan)  বর্ণনাকারীঃ খিলাসা ইবনু আমর (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৪৮

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৫. হাযিযগ্রস্ত মহিলা তার পরিধেয় কাপড় পবিত্র করে সেই কাপড়েই সালাত আদায় করতে পারবে

১০৪৮. হাম্মাদ হতে বর্ণিত, ইবরাহীম রাহি. বলেন, কোনো মহিলা হায়েযগ্রস্ত অবস্থায় যে কাপড় পরিধান করে, যদি তাতে রক্ত লাগে, তবে সে তা ধুয়ে নেবে। আর তা না হলে তার জন্য তা ধোয়া বাধ্যতামূলক নয়। আর যদি সেই কাপড়ে সে ঘামে ভিজে যায়, তবে তাতে পানি ছিটিয়ে দেওয়াই যথেষ্ট হবে।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ১/৯৫।

بَابُ الْمَرْأَةِ الْحَائِضِ تُصَلِّي فِي ثَوْبِهَا إِذَا طَهُرَتْ

أَخْبَرَنَا يَزِيدُ بْنُ هَارُونَ عَنْ هِشَامٍ الدَّسْتَوَائِيِّ عَنْ حَمَّادٍ عَنْ إِبْرَاهِيمَ فِيمَا تَلْبَسُ الْمَرْأَةُ مِنْ الثِّيَابِ وَهِيَ حَائِضٌ إِنْ أَصَابَهُ دَمٌ غَسَلَتْهُ وَإِلَّا فَلَيْسَ عَلَيْهَا غَسْلُهُ وَإِنْ عَرِقَتْ فِيهِ فَإِنَّهُ يُجْزِئُهَا أَنْ تَنْضَحَهُ

إسناده صحيح

أخبرنا يزيد بن هارون عن هشام الدستوائي عن حماد عن إبراهيم فيما تلبس المرأة من الثياب وهي حائض إن أصابه دم غسلته وإلا فليس عليها غسله وإن عرقت فيه فإنه يجزئها أن تنضحه إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ হাম্মাদ ইবনু আবী সুলাইমান (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৪৯

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৫. হাযিযগ্রস্ত মহিলা তার পরিধেয় কাপড় পবিত্র করে সেই কাপড়েই সালাত আদায় করতে পারবে

১০৪৯. উছমান হতে বর্ণিত, মুজাহিদ রাহি. বলেন, হায়িযগ্রস্ত মহিলা (পবিত্রতা লাভের পর) হায়েয অবস্থায় পরিহিত কাপড়ে সালাত আদায় করতে পারবে। কিন্তু, যদি তার শরীর থেকে কাপড়ের কোথাও রক্ত লেগে যায়, তবে সে শুধু রক্তের স্থানটুকু ধুয়ে নেবে।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ১/৯৬।

بَابُ الْمَرْأَةِ الْحَائِضِ تُصَلِّي فِي ثَوْبِهَا إِذَا طَهُرَتْ

أَخْبَرَنَا عُبَيْدُ اللَّهِ بْنُ مُوسَى عَنْ عُثْمَانَ عَنْ مُجَاهِدٍ قَالَ الْمَرْأَةُ الْحَائِضُ تُصَلِّي فِي ثِيَابِهَا الَّتِي تَحِيضُ فِيهَا إِلَّا أَنْ يُصِيبَ شَيْئًا مِنْهَا دَمٌ فَتَغْسِلَ مَوْضِعَ الدَّمِ

إسناده صحيح

أخبرنا عبيد الله بن موسى عن عثمان عن مجاهد قال المرأة الحائض تصلي في ثيابها التي تحيض فيها إلا أن يصيب شيئا منها دم فتغسل موضع الدم إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ উসমান ইবনুল আসওয়াদ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৫০

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৫. হাযিযগ্রস্ত মহিলা তার পরিধেয় কাপড় পবিত্র করে সেই কাপড়েই সালাত আদায় করতে পারবে

১০৫০. ফাতিমাহ বিনতে মুনযির হতে বর্ণিত, আসমা বিনতে আবু বাকর রাদ্বিয়াল্লাহু আনহুমা বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে হায়েযগ্রস্ত মহিলার কাপড়ে লাগা রক্ত সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলাম। তিনি বললেন: “তুমি সেটি ঘষে তুলে দাও, অতঃপর তাতে পানি ছিটিয়ে দাও।”[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: সহীহ বুখারী ২২৭, ৩০৭; সহীহ মুসলিম ২৯১; আমরা এর পূর্ণ তাখরীজ দিয়েছি সহীহ ইবনু হিব্বান নং ১৩৯৬ ও মুসনাদুল হুমাইদী নং ৩২২ এ।

بَابُ الْمَرْأَةِ الْحَائِضِ تُصَلِّي فِي ثَوْبِهَا إِذَا طَهُرَتْ

أَخْبَرَنَا عَمْرُو بْنُ عَوْنٍ حَدَّثَنَا سُفْيَانُ بْنُ عُيَيْنَةَ عَنْ هِشَامِ بْنِ عُرْوَةَ عَنْ فَاطِمَةَ بِنْتِ الْمُنْذِرِ عَنْ أَسْمَاءَ بِنْتِ أَبِي بَكْرٍ قَالَتْ سَأَلْتُ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ عَنْ دَمِ الْحَيْضِ يُصِيبُ الثَّوْبَ قَالَ حُتِّيهِ ثُمَّ رُشِّيهِ بِالْمَاءِ

إسناده صحيح

أخبرنا عمرو بن عون حدثنا سفيان بن عيينة عن هشام بن عروة عن فاطمة بنت المنذر عن أسماء بنت أبي بكر قالت سألت رسول الله صلى الله عليه وسلم عن دم الحيض يصيب الثوب قال حتيه ثم رشيه بالماء إسناده صحيح

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ ফাতিমা বিনতে আল মুনযির (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৫১

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৫. হাযিযগ্রস্ত মহিলা তার পরিধেয় কাপড় পবিত্র করে সেই কাপড়েই সালাত আদায় করতে পারবে

১০৫১. মুগীরাহ হতে বর্ণিত, ইবরাহীম রাহি. বলেন, ’হায়েযগ্রস্ত মহিলার কাপড়ে রক্ত না লাগলে সে তার কাপড় ধৌত করবে না।’[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: আমি এটি এখানে ব্যতীত আর কোথাও পাইনি। আরও দেখুন, বিগত ১০৫৪ (অনুবাদে ১০৪৮) নং হাদীসটি।

بَابُ الْمَرْأَةِ الْحَائِضِ تُصَلِّي فِي ثَوْبِهَا إِذَا طَهُرَتْ

حَدَّثَنَا مُعَاذُ بْنُ هَانِئٍ عَنْ إِبْرَاهِيمَ بْنِ طَهْمَانَ عَنْ مُغِيرَةَ عَنْ إِبْرَاهِيمَ قَالَ الْحَائِضُ لَا تَغْسِلُ ثَوْبَهَا إِذَا لَمْ يَكُنْ فِيهِ دَمٌ

حدثنا معاذ بن هانئ عن إبراهيم بن طهمان عن مغيرة عن إبراهيم قال الحائض لا تغسل ثوبها إذا لم يكن فيه دم

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ মুগীরা ইবনু শু’বা (রাঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৫২

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৫. হাযিযগ্রস্ত মহিলা তার পরিধেয় কাপড় পবিত্র করে সেই কাপড়েই সালাত আদায় করতে পারবে

১০৫২. ফাতিমাহ বিনতে মুনযির থেকে বর্ণিত, আসমা বিনতে আবু বাকর রাদ্বিয়াল্লাহু আনহা বলেন, আমি এক মহিলাকে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নিকট জিজ্ঞেস করতে শুনেছি, হায়েযগ্রস্ত মহিলা হায়েয হতে পবিত্র হলে তার কাপড় কিভাবে (পরিষ্কার) করবে? তিনি বলেন: “যদি তুমি তাতে রক্ত দেখতে পাও, তবে তা (রক্ত) ঘষে তুলে ফেলবে, তারপর পানি দিয়ে রগড়াবে তারপর পূরো কাপড় ভালভাবে ধুয়ে নেবে তারপর সেই কাপড়ে সালাত আদায় করবে।”[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: এটি ৭৯৯, ১০৫৪ (অনুবাদ ৭৯৩, ১০৫০) নং এ গত হয়েছে। পূর্ণ তাখরীজের জন্য সেখানে দেখুন।

بَابُ الْمَرْأَةِ الْحَائِضِ تُصَلِّي فِي ثَوْبِهَا إِذَا طَهُرَتْ

أَخْبَرَنَا مُحَمَّدُ بْنُ عَبْدِ اللَّهِ الرَّقَاشِيُّ حَدَّثَنَا يَزِيدُ هُوَ ابْنُ زُرَيْعٍ حَدَّثَنَا مُحَمَّدٌ هُوَ ابْنُ إِسْحَقَ حَدَّثَتْنِي فَاطِمَةُ بِنْتُ الْمُنْذِرِ عَنْ أَسْمَاءَ بِنْتِ أَبِي بَكْرٍ قَالَتْ سَمِعْتُ امْرَأَةً تَسْأَلُ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ عَنْ ثَوْبِهَا إِذَا طَهُرَتْ مِنْ مَحِيضِهَا كَيْفَ تَصْنَعُ بِهِ قَالَ إِنْ رَأَيْتِ فِيهِ دَمًا فَحُكِّيهِ ثُمَّ اقْرُصِيهِ بِمَاءٍ ثُمَّ انْضَحِي فِي سَائِرِهِ فَصَلِّي فِيهِ

أخبرنا محمد بن عبد الله الرقاشي حدثنا يزيد هو ابن زريع حدثنا محمد هو ابن إسحق حدثتني فاطمة بنت المنذر عن أسماء بنت أبي بكر قالت سمعت امرأة تسأل رسول الله صلى الله عليه وسلم عن ثوبها إذا طهرت من محيضها كيف تصنع به قال إن رأيت فيه دما فحكيه ثم اقرصيه بماء ثم انضحي في سائره فصلي فيه

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ ফাতিমা বিনতে আল মুনযির (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৫৩

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৫. হাযিযগ্রস্ত মহিলা তার পরিধেয় কাপড় পবিত্র করে সেই কাপড়েই সালাত আদায় করতে পারবে

১০৫৩. উম্মু কায়িস বিনতে মিহসানের দাস আদী ইবনু দীনার হতে বর্ণিত, উম্মু কায়িস রাদ্বিয়াল্লাহু আনহা বলেন, আমি নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে কাপড়ে হায়িযের রক্ত লেগে যাওয়া সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলাম। তিনি বললেন: “পানি এবং বরই পাতা দ্বারা ধুয়ে নাও এবং (এর আগে) এক টুকরা কাঠ বা হাড় দিয়ে তা ঘষে নাও।”[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: আহমাদ ৬/৩৫৫, ৩৫৬; আবু দাউদ ৩৬৩; বাইহাকী ২/৪০৭; নাসাঈ ২৯৩; ইবনু মাজাহ ৬২৮; আব্দুর রাযযাক ১২২৬।

بَابُ الْمَرْأَةِ الْحَائِضِ تُصَلِّي فِي ثَوْبِهَا إِذَا طَهُرَتْ

أَخْبَرَنَا أَبُو عُبَيْدٍ الْقَاسِمُ بْنُ سَلَّامٍ حَدَّثَنَا عَبْدُ الرَّحْمَنِ بْنُ مَهْدِيٍّ عَنْ سُفْيَانَ عَنْ ثَابِتٍ الْحَدَّادِ عَنْ عَدِيِّ بْنِ دِينَارٍ مَوْلَى أُمِّ قَيْسٍ بِنْتِ مِحْصَنٍ عَنْ أُمِّ قَيْسٍ قَالَتْ سَأَلْتُ النَّبِيَّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ عَنْ دَمِ الْحِيضَةِ يَكُونُ فِي الثَّوْبِ فَقَالَ اغْسِلِيهِ بِمَاءٍ وَسِدْرٍ وَحُكِّيهِ بِضِلَعٍ

أخبرنا أبو عبيد القاسم بن سلام حدثنا عبد الرحمن بن مهدي عن سفيان عن ثابت الحداد عن عدي بن دينار مولى أم قيس بنت محصن عن أم قيس قالت سألت النبي صلى الله عليه وسلم عن دم الحيضة يكون في الثوب فقال اغسليه بماء وسدر وحكيه بضلع

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৫৪

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৫. হাযিযগ্রস্ত মহিলা তার পরিধেয় কাপড় পবিত্র করে সেই কাপড়েই সালাত আদায় করতে পারবে

১০৫৪. কারীমাহ বলেন, আমি আয়িশা রাদ্বিয়াল্লাহু্ আনহাকে বলতে শুনেছি… এবং আমি তাকে জিজ্ঞেস করলাম: এক মহিলার কাপড়ে তার হায়েযের রক্ত লেগে গেলে (সে কী করবে)? তিনি বললেন: সে যেন তা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলে। সে মহিলা বলল, আমরা তো তা ধুয়ে ফেলি, কিন্তু তার দাগ যে থেকে যায়? তিনি বলেন: নিশ্চয়ই পানি পবিত্রকারী।’[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ হাসান।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ১/১৯৮; আরও দেখুন, সুনান বাইহাকী ২/৪০৮।

 

আর এটি সহীহ সনদে ১০৫২ (অনুবাদে ১০৪৬) এ গত হয়েছে, সেখানে পূর্ণ তাখরীজ দেখুন।

بَابُ الْمَرْأَةِ الْحَائِضِ تُصَلِّي فِي ثَوْبِهَا إِذَا طَهُرَتْ

أَخْبَرَنَا سَعِيدُ بْنُ الرَّبِيعِ عَنْ عَلِيِّ بْنِ الْمُبَارَكِ قَالَ سَمِعْتُ كَرِيمَةَ قالَتْ سَمِعْتُ عَائِشَةَ وَسَأَلَتْهَا امْرَأَةٌ فَقَالَتْ الْمَرْأَةُ يُصِيبُ ثَوْبَهَا مِنْ دَمِ حِيضَتِهَا فَقَالَتْ لِتَغْسِلْهُ بِالْمَاءِ قَالَتْ فَإِنَّا نَغْسِلُهُ فَيَبْقَى أَثَرُهُ قَالَتْ إِنَّ الْمَاءَ طَهُورٌ

أخبرنا سعيد بن الربيع عن علي بن المبارك قال سمعت كريمة قالت سمعت عائشة وسألتها امرأة فقالت المرأة يصيب ثوبها من دم حيضتها فقالت لتغسله بالماء قالت فإنا نغسله فيبقى أثره قالت إن الماء طهور

 হাদিসের মানঃ হাসান (Hasan)  বর্ণনাকারীঃ কারীমাহ্ বিনতু হাম্মাম (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৫৫

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৫. হাযিযগ্রস্ত মহিলা তার পরিধেয় কাপড় পবিত্র করে সেই কাপড়েই সালাত আদায় করতে পারবে

১০৫৫. আতা রাহি. হতে বর্ণিত তিনি বলেন, আয়িশা রাদ্বিয়াল্লাহু আনহা তার কাপড়ে হায়েযের সামান্য রক্ত দেখতে পেতেন। ফলে তিনি পাথর বা কাঠি কিংবা শিং দ্বারা তা ঘষে তুলে ফেলতেন, তারপর পানি ছিটিয়ে দিতেন।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ। আব্দুর রাযযাকে ইবনু জুরাইজ কর্তৃক ‘হাদ্দাসানা’ বলে বর্ণিত হয়েছে, ফলে ইবনু জুরাইজের তাদলীসের সন্দেহ দূর হয়ে যায়।

 

তাখরীজ: আব্দুর রাযযাক, (আল মুসান্নাফ) নং ১২২৮ (সেখানে ‘শিং’ এর বদলে ‘হাড়’ এবং ‘পানি ছিটিয়ে দিতেন’ এরপরে অতিরক্তি ‘তারপর তাতে সালাত আদায় করতেন’ রয়েছে)।

بَابُ الْمَرْأَةِ الْحَائِضِ تُصَلِّي فِي ثَوْبِهَا إِذَا طَهُرَتْ

أَخْبَرَنَا جَعْفَرُ بْنُ عَوْنٍ حَدَّثَنَا ابْنُ جُرَيْجٍ عَنْ عَطَاءٍ قَالَ كَانَتْ عَائِشَةُ تَرَى الشَّيْءَ مِنْ الْمَحِيضِ فِي ثَوْبِهَا فَتَحُتُّهُ بِالْحَجَرِ أَوْ بِالْعُودِ أَوْ بِالْقَرْنِ ثُمَّ تَرُشُّهُ

أخبرنا جعفر بن عون حدثنا ابن جريج عن عطاء قال كانت عائشة ترى الشيء من المحيض في ثوبها فتحته بالحجر أو بالعود أو بالقرن ثم ترشه

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ আতা ইবনু আবী রাবাহ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৫৬

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৬. ‘জুনুবী’ (অপবিত্র) ব্যক্তি ও হায়িযগ্রস্ত মহিলার ঘাম সম্পর্কে

১০৫৬. আব্দুল্লাহ ইবনু উছমান ইবনু খুছাইম বলেন, ’জুনুবী’ (অপবিত্র) ব্যক্তি যে তার কাপড় পরিহিত অবস্থায় ঘেমে যায়, তারপর সে তা দ্বারা ঘাম মুছে ফেলে- এমন লোক সম্পর্কে আমি সাঈদ ইবনু জুবাইর রাহি. কে জিজ্ঞেস করলাম। তিনি বললেন: এতে কোনো দোষ নেই।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ১/১৯১; পরবর্তী হাদীসটি দেখুন।

بَاب فِي عَرَقِ الْجُنُبِ وَالْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا أَبُو نُعَيْمٍ عَنْ عَبْدِ الْوَهَّابِ الثَّقَفِيِّ عَنْ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ عُثْمَانَ بْنِ خُثَيْمٍ قَالَ سَأَلْتُ سَعِيدَ بْنَ جُبَيْرٍ عَنْ الْجُنُبِ يَعْرَقُ فِي الثَّوْبِ ثُمَّ يَمْسَحُهُ بِهِ قَالَ لَا بَأْسَ بِهِ

أخبرنا أبو نعيم عن عبد الوهاب الثقفي عن عبد الله بن عثمان بن خثيم قال سألت سعيد بن جبير عن الجنب يعرق في الثوب ثم يمسحه به قال لا بأس به

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৫৭

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৬. ‘জুনুবী’ (অপবিত্র) ব্যক্তি ও হায়িযগ্রস্ত মহিলার ঘাম সম্পর্কে

১০৫৭. আব্দুল্লাহ ইবনু উছমান ইবনু খুছাইম হতে বর্ণিত, সাঈদ ইবনু জুবাইর রাহি.বলেন, ’জুনুবী’ (অপবিত্র) ব্যক্তি তার কাপড় পরিহিত অবস্থায় ঘেমে যাওয়া’ -কে আপত্তিকর মনে করতেন না।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: এটি পূর্বের হাদীসের পুনরাবৃত্তি।

بَاب فِي عَرَقِ الْجُنُبِ وَالْحَائِضِ

حَدَّثَنَا حَجَّاجُ بْنُ مِنْهَالٍ حَدَّثَنَا حَمَّادُ بْنُ سَلَمَةَ عَنْ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ عُثْمَانَ بْنِ خُثَيْمٍ عَنْ سَعِيدِ بْنِ جُبَيْرٍ أَنَّهُ كَانَ لَا يَرَى بِعَرَقِ الْجُنُبِ فِي الثَّوْبِ بَأْسًا

حدثنا حجاج بن منهال حدثنا حماد بن سلمة عن عبد الله بن عثمان بن خثيم عن سعيد بن جبير أنه كان لا يرى بعرق الجنب في الثوب بأسا

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৫৮

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৬. ‘জুনুবী’ (অপবিত্র) ব্যক্তি ও হায়িযগ্রস্ত মহিলার ঘাম সম্পর্কে

১০৫৮. আতা ইবনু সায়িব হতে বর্ণিত, শা’বী রাহি.ও একে আপত্তিকর মনে করতেন না।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ১/১৯১।

بَاب فِي عَرَقِ الْجُنُبِ وَالْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا حَجَّاجٌ حَدَّثَنَا حَمَّادٌ عَنْ عَطَاءِ بْنِ السَّائِبِ عَنْ الشَّعْبِيِّ أَنَّهُ كَانَ لَا يَرَى بِهِ بَأْسًا

أخبرنا حجاج حدثنا حماد عن عطاء بن السائب عن الشعبي أنه كان لا يرى به بأسا

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ আতা ইবনু সাইব (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৫৯

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৬. ‘জুনুবী’ (অপবিত্র) ব্যক্তি ও হায়িযগ্রস্ত মহিলার ঘাম সম্পর্কে

১০৫৯. হামীদ হতে বর্ণিত, হাসান রাহি. বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের প্রত্যেক সাহাবীর দু’টি করে কাপড় থাকতো না।এবং তিনি বলেন, যখন তুমি যখন গোসল কর, তখন কি (একটিও) কাপড় পরিধান কর না? বরং ঐ ঐ (কাপড় তুমি পরিধান কর)।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: আমি এটি অন্য কোথাও পাইনি। তবে ইবনু আবী শাইবা ১/১৯১ এ রয়েছে: হাসান রাহি. ‘জুনুবী’ (অপবিত্র) ব্যক্তি এবং হায়িযগ্রস্ত মহিলার তার কাপড় পরিহিত অবস্থায় ঘেমে যাওয়া’ -কে আপত্তিকর মনে করতেন না।

بَاب فِي عَرَقِ الْجُنُبِ وَالْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا حَجَّاجٌ حَدَّثَنَا حَمَّادٌ عَنْ حُمَيْدٍ عَنْ الْحَسَنِ قَالَ مَا كُلُّ أَصْحَابِ النَّبِيِّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ كَانُوا يَجِدُونَ ثَوْبَيْنِ فَقَالَ إِذَا اغْتَسَلْتَ أَلَسْتَ تَلْبَسُهُ فَذَاكَ بِذَاكَ

أخبرنا حجاج حدثنا حماد عن حميد عن الحسن قال ما كل أصحاب النبي صلى الله عليه وسلم كانوا يجدون ثوبين فقال إذا اغتسلت ألست تلبسه فذاك بذاك

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৬০

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৬. ‘জুনুবী’ (অপবিত্র) ব্যক্তি ও হায়িযগ্রস্ত মহিলার ঘাম সম্পর্কে

১০৬০. কাসিম ইবনু মুহাম্মদ রাহি. থেকে বর্ণিত, আয়িশা রাদ্বিয়াল্লাহু আনহাকে এমন এক ব্যক্তি সম্পর্কে জিজ্ঞেস করা হলো যে স্ত্রীর সাথে মিলিত হওয়ার পর পোশাক পরিধান করলো, তারপর এ কাপড়ে সে ঘেমে উঠলো। কিন্তু তিনি (আয়িশা রা:) একে আপত্তিকর মনে করেন নি।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: আব্দুর রাযযাক নং ১৪৩১; ইবনু আবী শাইবা ১/১৯১; বাইহাকী ২/৪০৯।

بَاب فِي عَرَقِ الْجُنُبِ وَالْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا عَمْرُو بْنُ عَوْنٍ حَدَّثَنَا سُفْيَانُ بْنُ عُيَيْنَةَ عَنْ يَحْيَى بْنِ سَعِيدٍ عَنْ الْقَاسِمِ بْنِ مُحَمَّدٍ أَنَّ عَائِشَةَ سُئِلَتْ عَنْ الرَّجُلِ يُصِيبُ الْمَرْأَةَ ثُمَّ يَلْبَسُ الثَّوْبَ فَيَعْرَقُ فِيهِ فَلَمْ تَرَ بِهِ بَأْسًا

أخبرنا عمرو بن عون حدثنا سفيان بن عيينة عن يحيى بن سعيد عن القاسم بن محمد أن عائشة سئلت عن الرجل يصيب المرأة ثم يلبس الثوب فيعرق فيه فلم تر به بأسا

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ কাসিম বিন মুহাম্মাদ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৬১

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৬. ‘জুনুবী’ (অপবিত্র) ব্যক্তি ও হায়িযগ্রস্ত মহিলার ঘাম সম্পর্কে

১০৬১. ইবনু জুরাইজ হতে বর্ণিত, আতা রাহি. বলেন, ’জুনুবী’ (অপবিত্র) ব্যক্তি ও হায়িযগ্রস্ত মহিলা যে কাপড় পরিহিত অবস্থায় ঘেমে ভিজে যায়, তাদের সেই কাপড়ে সালাত আদায় করাতে কোনো আপত্তি নেই।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ যয়ীফ। তবে আব্দুর রাযযাকে ইবনু জুরাইজ ‘হাদ্দাসানা’ বলে এ হাদীস বর্ণনা করেছেন।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ১/১৯১; আব্দুর রাযযাক নং ১৪৩৬।

بَاب فِي عَرَقِ الْجُنُبِ وَالْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا عَمْرُو بْنُ عَوْنٍ حَدَّثَنَا يَحْيَى بْنُ سُلَيْمٍ عَنْ ابْنِ جُرَيْجٍ عَنْ عَطَاءٍ قَالَ لَا بَأْسَ أَنْ يَعْرَقَ الْجُنُبُ وَالْحَائِضُ فِي الثَّوْبِ يُصَلَّى فِيهِ

أخبرنا عمرو بن عون حدثنا يحيى بن سليم عن ابن جريج عن عطاء قال لا بأس أن يعرق الجنب والحائض في الثوب يصلى فيه

 হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai’f)  বর্ণনাকারীঃ ইবনু জুরায়জ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৬২

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৬. ‘জুনুবী’ (অপবিত্র) ব্যক্তি ও হায়িযগ্রস্ত মহিলার ঘাম সম্পর্কে

১০৬২. আবী হামযাহ হতে বর্ণিত, ’জুনুবী’ ব্যক্তির কাপড় পরিহিত অবস্থায় ঘেমে গেলে’ সেই সম্পর্কে ইবরাহীম রাহি. বলেন: এতে কোনো ক্ষতি নেই এবং তা পানি ঢালার (বা ছিটানোর) কোনো প্রয়োজন নেই।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ যয়ীফ, কেননা, আবী হামযাহ যয়ীফ।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ১/১৯১।

بَاب فِي عَرَقِ الْجُنُبِ وَالْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا عَمْرُو بْنُ عَوْنٍ أَخْبَرَنَا أَبُو الْأَحْوَصِ عَنْ أَبِي حَمْزَةَ عَنْ إِبْرَاهِيمَ فِي الْجُنُبِ يَعْرَقُ فِي ثَوْبِهِ قَالَ لَا يَضُرُّهُ وَلَا يَنْضَحُهُ بِالْمَاءِ

أخبرنا عمرو بن عون أخبرنا أبو الأحوص عن أبي حمزة عن إبراهيم في الجنب يعرق في ثوبه قال لا يضره ولا ينضحه بالماء

 হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai’f)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৬৩

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৬. ‘জুনুবী’ (অপবিত্র) ব্যক্তি ও হায়িযগ্রস্ত মহিলার ঘাম সম্পর্কে

১০৬৩. হাম্মাদ হতে বর্ণিত, হায়িযগ্রস্ত মহিলা কাপড় পরিহিত অবস্থায় ঘামলে’ সেই সম্পর্কে ইবরাহীম রাহি. বলেন, তাতে পানি ছিটিয়ে (বা ঢেলে) দেয়াই তার জন্য যথেষ্ট।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: আগের হাদীসটি দেখুন।

بَاب فِي عَرَقِ الْجُنُبِ وَالْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا يَزِيدُ بْنُ هَارُونَ عَنْ هِشَامٍ عَنْ حَمَّادٍ عَنْ إِبْرَاهِيمَ فِي الْحَائِضِ إِذَا عَرِقَتْ فِي ثِيَابِهَا فَإِنَّهُ يُجْزِئُهَا أَنْ تَنْضَحَهُ بِالْمَاءِ

أخبرنا يزيد بن هارون عن هشام عن حماد عن إبراهيم في الحائض إذا عرقت في ثيابها فإنه يجزئها أن تنضحه بالماء

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ হাম্মাদ ইবনু আবী সুলাইমান (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৬৪

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৬. ‘জুনুবী’ (অপবিত্র) ব্যক্তি ও হায়িযগ্রস্ত মহিলার ঘাম সম্পর্কে

১০৬৪. নাফি’ রাহি. হতে বর্ণিত, ইবনু উমার রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু ’জুনুবী’ (অপবিত্র) অবস্থায় কোনো কাপড় পরে ঘামতেন, আবার সেই কাপড় পরেই সালাত আদায় করতেন।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: মালিক ৮৯; ইবনু আবী শাইবা ১/১৯১; আব্দুর রাযযাক নং ১৪২৮।

بَاب فِي عَرَقِ الْجُنُبِ وَالْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا عَبْدُ اللَّهِ بْنُ مَسْلَمَةَ حَدَّثَنَا مَالِكٌ عَنْ نَافِعٍ عَنْ ابْنِ عُمَرَ كَانَ يَعْرَقُ فِي الثَّوْبِ وَهُوَ جُنُبٌ ثُمَّ يُصَلِّي فِيهِ

أخبرنا عبد الله بن مسلمة حدثنا مالك عن نافع عن ابن عمر كان يعرق في الثوب وهو جنب ثم يصلي فيه

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ নাফি‘ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৬৫

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৬. ‘জুনুবী’ (অপবিত্র) ব্যক্তি ও হায়িযগ্রস্ত মহিলার ঘাম সম্পর্কে

১০৬৫. ইকরিমাহ হতে বর্ণিত, ইবনু আব্বাস রাদ্বিয়াল্লাহু্ আনহুমা ’জুনুবী’ (অপবিত্র) ব্যক্তি ও হায়িযগ্রস্ত মহিলার ঘামকে আপত্তিকর বলে মনে করতেন না।[1]

[1] হুশাইম এটি ‘আন আন’ পদ্ধতিতে এটি বর্ণনা করেছেন, আর তিনি মুদাল্লিস। তবে এর মুতাবিয়াত রয়েছে, যা হিশাম ইবনুল হিসান সূত্রে।

 

তাখরীজ: এটি বর্ণনা করেছেন আব্দুর রাযযাক নং ১৪৩০; ইবনু আবী শাইবা ১/১৯১ ; বাইহাকী ২/৪০৯; হিশাম ইবনুল হিসান সূত্রে।

بَاب فِي عَرَقِ الْجُنُبِ وَالْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا يَحْيَى بْنُ يَحْيَى حَدَّثَنَا هُشَيْمٌ عَنْ هِشَامٍ هُوَ ابْنُ حَسَّانَ عَنْ عِكْرِمَةَ عَنْ ابْنِ عَبَّاسٍ أَنَّهُ لَمْ يَكُنْ يَرَى بَأْسًا بِعَرَقِ الْحَائِضِ وَالْجُنُبِ

أخبرنا يحيى بن يحيى حدثنا هشيم عن هشام هو ابن حسان عن عكرمة عن ابن عباس أنه لم يكن يرى بأسا بعرق الحائض والجنب

 হাদিসের মানঃ তাহকীক অপেক্ষমাণ  বর্ণনাকারীঃ ইকরিমা (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৬৬

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৭. হায়িযগ্রস্ত স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করা

১০৬৬. মালিক ইবনু আনাস সূত্রে যাইদ ইবনু আসলাম হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, এক ব্যক্তি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে জিজ্ঞেস করলেন, হায়িযগ্রস্ত অবস্থায় আমার স্ত্রীর (সাথে কোন কোন আচরণ) আমার জন্য হালাল? তিনি বললেন: “স্ত্রীলোক তার পাজামা শক্তভাবে বেঁধে নেবে, তারপর তার উর্ধ্বাংশে তোমার কাজ (তথা তার উর্ধ্বাংশ দ্বারা তুমি উপকৃত হতে পারো)।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ মু’দ্বাল (একাধিক রাবীর নাম বাদ পড়েছে)।

 

তাখরীজ: মালিক, তাহারাত ৯৫; বাইহাকী ৭/১৯১; তাবারাণী, আল কাবীর ১০/৩৮২ নং ১০৭৬৫; ইবনু আব্বাস হতে… যয়ীফ সনদে। আমরা এর পূর্ণ তাখরীজ করেছি মাজমাউয যাওয়াইদ নং ১৫৭৩।

بَاب مُبَاشَرَةِ الْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا خَالِدُ بْنُ مَخْلَدٍ حَدَّثَنَا مَالِكُ بْنُ أَنَسٍ عَنْ زَيْدِ بْنِ أَسْلَمَ قَالَ سَأَلَ رَجُلٌ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فَقَالَ مَا يَحِلُّ لِي مِنْ امْرَأَتِي وَهِيَ حَائِضٌ قَالَ لِتَشُدَّ عَلَيْهَا إِزَارَهَا ثُمَّ شَأْنَكَ بِأَعْلَاهَا

أخبرنا خالد بن مخلد حدثنا مالك بن أنس عن زيد بن أسلم قال سأل رجل رسول الله صلى الله عليه وسلم فقال ما يحل لي من امرأتي وهي حائض قال لتشد عليها إزارها ثم شأنك بأعلاها

 হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai’f)  বর্ণনাকারীঃ মালিক ইবনু আনাস (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৬৭

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৭. হায়িযগ্রস্ত স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করা

১০৬৭. মালিক রাহি. থেকে বর্ণিত, নাফি’ রাহি. বলেন, (আব্দুল্লাহ ইবনু) আব্দুল্লাহ ইবনু উমার এক ব্যক্তিকে আয়িশা রাদ্বিয়াল্লাহু আনহার নিকট এ কথা জিজ্ঞেস করতে পাঠালেন যে, হায়িয অবস্থায় কোনো লোক তার স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করতে পারবে কি? তখন তিনি বললেন: তার নিচের অংশে ইযার (নিম্নাংশের পরিধেয় কাপড়) শক্ত করে বেঁধে নেবে, অতঃপর স্বামী তার সাথে মেলামেশা করিবে।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর রাবীগণ নির্ভরযোগ্য।

 

তাখরীজ: মালিক তাহারাত ৯৭; বাইহাকী ৭/১৯০-১৯১; আব্দুর রাযযাক নং ১২৪১।

 

আয়িশা ও মায়মুনাহ রাদ্বিয়াল্লাহু আনহুমা হতে বুখারী মুসলিমে বর্ণিত হয়েছে কোনো ব্যক্তির জিজ্ঞাসার জবাবে, যে নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাদের সাথে কেমন আচরণ করতেন তাদের হায়িয অবস্থায়। পরবর্তী হাদীসটিও দেখুন। আরও দেখুন, ইবনু আবী শাইবা ৪/২৫৪, ২৫৫।

بَاب مُبَاشَرَةِ الْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا خَالِدٌ حَدَّثَنَا مَالِكٌ عَنْ نَافِعٍ قَالَ أَرْسَلَ عَبْدُ اللَّهِ بْنُ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ عُمَرَ إِلَى عَائِشَةَ لِيَسْأَلَهَا هَلْ يُبَاشِرُ الرَّجُلُ امْرَأَتَهُ وَهِيَ حَائِضٌ فَقَالَتْ لِتَشُدَّ إِزَارَهَا عَلَى أَسْفَلِهَا ثُمَّ يُبَاشِرُهَا

أخبرنا خالد حدثنا مالك عن نافع قال أرسل عبد الله بن عبد الله بن عمر إلى عائشة ليسألها هل يباشر الرجل امرأته وهي حائض فقالت لتشد إزارها على أسفلها ثم يباشرها

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ মালিক ইবনু আনাস (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৬৮

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৭. হায়িযগ্রস্ত স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করা

১০৬৮. হাম্মাদ হতে বর্ণিত, ইবরাহীম রাহি. বলেন, হায়িযগ্রস্ত মহিলার স্বামী তার পেট ও গুপ্তাংগের মধ্যবর্তী (প্রবেশ করানোর মত কোমল[1]) স্থানে এবং তার উভয় উরুর মাঝে সংগম করতে পারে। যদি স্বামীর (বীর্য) নির্গত হয়ে স্ত্রীর শরীরে লাগে, তবে সে তা ধুয়ে ফেলবে আর স্বামী গোসল করবে।[2]

[1] (( দেখুন দারিমীর শরহ ‘ফাতহুল মান্নান’ অত্র হাদীসের (নং ১১২৭) টীকা ও ব্যাখ্যা-অনুবাদক))

 

[2] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: আমি এটি এখানে ব্যতীত অন্য কোথাও পাইনি।

 

এ অর্থে ইবরাহীম হতে বর্ণনা করেছেন আব্দুর রাযযাক নং ৯৭১।

بَاب مُبَاشَرَةِ الْحَائِضِ

حَدَّثَنَا مُحَمَّدُ بْنُ عِيسَى حَدَّثَنَا ابْنُ أَبِي زَائِدَةَ عَنْ الْعَلَاءِ بْنِ الْمُسَيَّبِ عَنْ حَمَّادٍ عَنْ إِبْرَاهِيمَ قَالَ الْحَائِضُ يَأْتِيهَا زَوْجُهَا فِي مَرَاقِّهَا وَبَيْنَ فَخِذَيْهَا فَإِذَا دَفَقَ غَسَلَتْ مَا أَصَابَهَا وَاغْتَسَلَ هُوَ

حدثنا محمد بن عيسى حدثنا ابن أبي زائدة عن العلاء بن المسيب عن حماد عن إبراهيم قال الحائض يأتيها زوجها في مراقها وبين فخذيها فإذا دفق غسلت ما أصابها واغتسل هو

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ হাম্মাদ ইবনু আবী সুলাইমান (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৬৯

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৭. হায়িযগ্রস্ত স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করা

১০৬৯. উবাইদুল্লাহ ইবনু আদী বলেন, আমি আব্দুল কারীম কে হায়িযগ্রস্ত মহিলা সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলে তিনি বললেন, ইবরাহীম বলেছেন, (আমার স্ত্রী) উম্মু ইমরাণ জানে যে, তার হায়িযগ্রস্ত অবস্থায় আমি তার নিতন্বে খোঁচা দিতাম (বিদ্ধ করতাম)।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: আমি এটি আর অন্য কোথাও পাইনি।

بَاب مُبَاشَرَةِ الْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا مُحَمَّدُ بْنُ عِيسَى حَدَّثَنَا عُبَيْدُ اللَّهِ بْنُ عَدِيٍّ قَالَ سَأَلْتُ عَبْدَ الْكَرِيمِ عَنْ الْحَائِضِ فَقَالَ قَالَ إِبْرَاهِيمُ لَقَدْ عَلِمَتْ أُمُّ عِمْرَانَ أَنِّي أَطْعُنُ فِي أَلْيَتِهَا يَعْنِي وَهِيَ حَائِضٌ

أخبرنا محمد بن عيسى حدثنا عبيد الله بن عدي قال سألت عبد الكريم عن الحائض فقال قال إبراهيم لقد علمت أم عمران أني أطعن في أليتها يعني وهي حائض

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ উবাইদুল্লাহ্ ইবনু আদী ইবনু খিয়ার (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৭০

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৭. হায়িযগ্রস্ত স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করা

১০৭০. মালিক ইবনু মাগুল বলেন, এক ব্যক্তি আতা রাহি. কে হায়িযগ্রস্ত মহিলা সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলে তিনি রক্ত (নির্গত হওয়ার স্থান) ব্যতীত অন্যত্র বা এর আশপাশে (সংগম করায়) কোনো দোষ আছে বলে মনে করেন নি।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ মুনকাতি’ বা বিচ্ছিন্ন। মালিক ইবনু মাগুল আতা হতে কিছু শ্রবন করেননি।

 

তাখরীজ: আমি এখানে ব্যতীত এটি আর কোথাও পাইনি। তবে আব্দুর রাযযাক নং ১২৪২ দেখুন।

بَاب مُبَاشَرَةِ الْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا مُحَمَّدُ بْنُ يُوسُفَ حَدَّثَنَا مَالِكُ بْنُ مِغْوَلٍ قَالَ سَأَلَ رَجُلٌ عَطَاءً عَنْ الْحَائِضِ فَلَمْ يَرَ بِمَا دُونَ الدَّمِ بَأْسًا

أخبرنا محمد بن يوسف حدثنا مالك بن مغول قال سأل رجل عطاء عن الحائض فلم ير بما دون الدم بأسا

 হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai’f)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৭১

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৭. হায়িযগ্রস্ত স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করা

১০৭১. আসওয়াদ রাহি. হতে বর্ণিত, আয়িশা রাদ্বিয়াল্লাহু আনহা বলেন, আমার হায়িয হলে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম নির্দেশ দিতেন ফলে আমি ইযার পরিধান করতাম এবং (এরপর) তিনি আমার সাথে মেলামেশা করতেন।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ। হাদীসটি বুখারী মুসলিমের।

 

তাখরীজ: সহীহ বুখারী ৩০০; সহীহ মুসলিম ২৯৩; আমরা এর পূর্ণ তাখরীজ দিয়েছি ও এর শাহিদ হাদীসসমূহ উল্লেখ করেছি মুসনাদুল মাওসিলী নং ৪৮১০; সহীহ ইবনু হিব্বান নং ১৩৬৪।

بَاب مُبَاشَرَةِ الْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا مُحَمَّدُ بْنُ يُوسُفَ حَدَّثَنَا سُفْيَانُ عَنْ مَنْصُورٍ عَنْ إِبْرَاهِيمَ عَنْ الْأَسْوَدِ عَنْ عَائِشَةَ قَالَتْ كُنْتُ إِذَا حِضْتُ أَمَرَنِي النَّبِيُّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فَأَتَّزِرُ وَكَانَ يُبَاشِرُنِي

أخبرنا محمد بن يوسف حدثنا سفيان عن منصور عن إبراهيم عن الأسود عن عائشة قالت كنت إذا حضت أمرني النبي صلى الله عليه وسلم فأتزر وكان يباشرني

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ আসওয়াদ ইবনে ইয়াযীদ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৭২

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৭. হায়িযগ্রস্ত স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করা

১০৭২. মায়মুন ইবনু মিহরাণ রাহি. বলেন, আয়িশা রাদ্বিয়াল্লাহু আনহাকে জিজ্ঞেস করা হলো, কোনো পুরুষের স্ত্রী হায়েযগ্রস্ত অবস্থায় তার স্ত্রী ব্যবহার কতটুকু তার জন্য হালাল? তিনি বলেন, ইযার (পাজামা)-এর উপর দিয়ে যা কিছু করা সম্ভব।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ৪/২৫৫। আরও দেখুন ১০৭২, ১০৭৩, ১০৭৭ (অনুবাদে ১০৬৬, ১০৬৭, ১০৭১) নং গুলো।

بَاب مُبَاشَرَةِ الْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا مُحَمَّدُ بْنُ يُوسُفَ حَدَّثَنَا الْأَوْزَاعِيُّ حَدَّثَنِي مَيْمُونُ بْنُ مِهْرَانَ قَالَ سُئِلَتْ عَائِشَةُ مَا يَحِلُّ لِلرَّجُلِ مِنْ امْرَأَتِهِ وَهِيَ حَائِضٌ قَالَتْ مَا فَوْقَ الْإِزَارِ

أخبرنا محمد بن يوسف حدثنا الأوزاعي حدثني ميمون بن مهران قال سئلت عائشة ما يحل للرجل من امرأته وهي حائض قالت ما فوق الإزار

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ মায়মুন ইবনু মিহরান (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৭৩

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৭. হায়িযগ্রস্ত স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করা

১০৭৩. মাসুরুক বলেন, আমি আয়িশা রাদ্বিয়াল্লাহু আনহা কে বললাম, কোনো পুরুষের স্ত্রী হায়েযগ্রস্ত অবস্থায় তার স্ত্রী ব্যবহার কতটুকু তার জন্য হালাল? তিনি বলেন, সহবাস ব্যতীত সবকিছুই হালাল। তিনি (মাসরুক) বলেন, আমি বললাম, স্বামী-স্ত্রী উভয়ে মুহরিম (হজ্জ্বের ইহরাম বাঁধা) অবস্থায় স্বামীর উপর কোন কোন কাজ হারাম? তিনি বললেন, স্ত্রীর সাথে কথা-বার্তা বলা ব্যতীত আর সবই হারাম।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: দেখুন, আগের আয়িশার হাদীসটি।

بَاب مُبَاشَرَةِ الْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا يَزِيدُ بْنُ هَارُونَ حَدَّثَنَا عُيَيْنَةُ بْنُ عَبْدِ الرَّحْمَنِ بْنِ جَوْشَنٍ عَنْ مَرْوَانَ الْأَصْفَرِ عَنْ مَسْرُوقٍ قَالَ قُلْتُ لِعَائِشَةَ مَا يَحِلُّ لِلرَّجُلِ مِنْ امْرَأَتِهِ إِذَا كَانَتْ حَائِضًا قَالَتْ كُلُّ شَيْءٍ غَيْرُ الْجِمَاعِ قَالَ قَلْتُ فَمَا يَحْرُمُ عَلَيْهِ مِنْهَا إِذَا كَانَا مُحْرِمَيْنِ قَالَتْ كُلُّ شَيْءٍ غَيْرُ كَلَامِهَا

أخبرنا يزيد بن هارون حدثنا عيينة بن عبد الرحمن بن جوشن عن مروان الأصفر عن مسروق قال قلت لعائشة ما يحل للرجل من امرأته إذا كانت حائضا قالت كل شيء غير الجماع قال قلت فما يحرم عليه منها إذا كانا محرمين قالت كل شيء غير كلامها

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ মাসরূক (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৭৪

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৭. হায়িযগ্রস্ত স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করা

১০৭৪. কোনো এক ব্যক্তি থেকে বর্ণিত, আয়িশা রাদ্বিয়াল্লাহু আনহা লোকদের উদ্দেশ্যে বলেন, রক্তের চিহ্ন (স্থান) হতে দূরে থাকো।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ য়য়ীফ। কেননা, জিলদ ইবনু আইয়্যুব যয়ীফ এবং আয়িশা রা: হতে বর্ণনাকারী মাজহুল (অজ্ঞাত পরিচয়)।

 

তাখরীজ: দেখুন, আব্দুর রাযযাক নং ১২৪০, ১২৪১।

بَاب مُبَاشَرَةِ الْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا مُحَمَّدُ بْنُ يُوسُفَ حَدَّثَنَا سُفْيَانُ عَنْ جَلْدِ بْنِ أَيُّوبَ عَنْ رَجُلٍ عَنْ عَائِشَةَ قَالَتْ لِإِنْسَانٍ اجْتَنِبْ شِعَارَ الدَّمِ

أخبرنا محمد بن يوسف حدثنا سفيان عن جلد بن أيوب عن رجل عن عائشة قالت لإنسان اجتنب شعار الدم

 হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai’f)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৭৫

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৭. হায়িযগ্রস্ত স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করা

১০৭৫. ইসমাঈল হতে বর্ণিত, শা’বী রাহি. বলেন, (হায়িযগ্রস্ত মহিলার স্বামী তার সাথে মেলামেশা করতে পারবে,) যদি তার অপবিত্রতা তথা রক্তের স্থানে কাপড়ের টুকরা ব্যবহার করা হয়।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: তাবারী, তাফসীর ২/৩৮৪ সহীহ সনদে।

 

আর এর শাহিদ হাদীস বর্ণিত হয়েছে ইবনু আবী শাইবা ৪/২৫৫ শাইবানী হতে সহীহ সনদে।

بَاب مُبَاشَرَةِ الْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا مُحَمَّدُ بْنُ يُوسُفَ حَدَّثَنَا سُفْيَانُ عَنْ إِسْمَعِيلَ عَنْ الشَّعْبِيِّ قَالَ إِذَا كَفَّ الْأَذَى يَعْنِي الدَّمَ

أخبرنا محمد بن يوسف حدثنا سفيان عن إسمعيل عن الشعبي قال إذا كف الأذى يعني الدم

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ ইসমা‘ঈল (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৭৬

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৭. হায়িযগ্রস্ত স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করা

১০৭৬. লাইছ হতে বর্ণিত, মুজাহিদ রাহি. বলেন, হায়িযগ্রস্ত মহিলার দুই উরুতে অথবা তার নাভীতে (তার স্বামীর) সহবাস করাতে কোনো দোষ নেই।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ যয়ীফ, কেননা, লাইছ যয়ীফ।

 

তাখরীজ: তবে হাসান সনদে এর শাহিদ বর্ণিত হয়েছে ইবনু আবী শাইবা ৪/২৫৬ হাসান রাহি. হতে।

بَاب مُبَاشَرَةِ الْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا زَكَرِيَّا بْنُ عَدِيٍّ حَدَّثَنَا شَرِيكٌ عَنْ لَيْثٍ عَنْ مُجَاهِدٍ قَالَ لَا بَأْسَ أَنْ تُؤْتَى الْحَائِضُ بَيْنَ فَخِذَيْهَا وَفِي سُرَّتِهَا

أخبرنا زكريا بن عدي حدثنا شريك عن ليث عن مجاهد قال لا بأس أن تؤتى الحائض بين فخذيها وفي سرتها

 হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai’f)  বর্ণনাকারীঃ লাইস (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৭৭

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৭. হায়িযগ্রস্ত স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করা

১০৭৭. লাইছ হতে বর্ণিত, মুজাহিদ রাহি. বলেন, সামনে অথবা পিছন থেকে (সহবাস করায়) কোনো দোষ নেই, তবে পায়ুপথে অথবা হায়িযের সময় ব্যতীত।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ যয়ীফ, লাইছ যয়ীফ হওয়ার কারণে।

 

তাখরীজ; আমি এ শব্দে এটি আর কোথাও পাইনি। তবে আগের হাদীসটি দেখুন।

بَاب مُبَاشَرَةِ الْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا أَبُو نُعَيْمٍ حَدَّثَنَا الْحَسَنُ بْنُ صَالِحٍ عَنْ لَيْثٍ عَنْ مُجَاهِدٍ قَالَ يُقْبِلُ بِهِ وَيُدْبِرُ إِلَّا الدُّبُرَ وَالْمَحِيضَ

أخبرنا أبو نعيم حدثنا الحسن بن صالح عن ليث عن مجاهد قال يقبل به ويدبر إلا الدبر والمحيض

 হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai’f)  বর্ণনাকারীঃ লাইস (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৭৮

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৭. হায়িযগ্রস্ত স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করা

১০৭৮. আবী সালামাহ হতে বর্ণিত, উম্মু সালামাহ রাদ্বিয়াল্লাহু আনহা বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সাথে এক লেপের নিচে ছিলাম। এমতাবস্থায় মেয়েদের যেরূপ হয়ে থাকে (তথা হায়িয), আমিও সেটা অনুভব করলাম। ফলে আমি উঠে দাঁড়ালাম। তখন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন: “তোমার কি হলো? তোমার কি নিফাস (তথা হায়িয) হয়েছে?” আমি বললাম, মেয়েদের যেরূপ হয়, আমিও সেরূপ অনুভব করছি (তথা আমার হায়িয হয়েছে)। তিনি বললেন: ওটি এমন জিনিস যা আল্লাহ আদম (আ:) এর কন্যা সন্তানের জন্য নির্ধারণ করেছেন। তিনি বলেন, আমি উঠে গেলাম এবং নিজের অবস্থা ঠিকঠাক করে নিয়ে তারপর ফিরে এলাম। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন: “লেপের ভেতরে প্রবেশ করো।” তারপর আমি ভেতরে প্রবেশ করলাম।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ হাসান।

 

তাখরীজ: আহমাদ ৬/২৯৪; ইবনু মাজাহ ৬৩৭; আমরা এর তাখরীজ পূর্ণ করেছি মুসনাদুল মাউসিলী ১২/৪২৬ এ; আরও দেখুন, পরবর্তী টীকাটি, মুসান্নাফ ইবনু আবী শাইবা ৪/২৫৪ ও মুসান্নাফ আব্দুর রাযযাক নং ১২৩৫।

بَاب مُبَاشَرَةِ الْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا يَعْلَى بْنُ عُبَيْدٍ وَيَزِيدُ بْنُ هَارُونَ عَنْ مُحَمَّدِ بْنِ عَمْرٍو عَنْ أَبِي سَلَمَةَ عَنْ أُمِّ سَلَمَةَ قَالَتْ كُنْتُ مَعَ رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فِي لِحَافٍ فَوَجَدْتُ مَا تَجِدُ النِّسَاءُ فَقُمْتُ فَقَالَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ مَا لَكِ أَنَفِسْتِ قُلْتُ وَجَدْتُ مَا تَجِدُ النِّسَاءُ قَالَ ذَاكَ مَا كَتَبَ اللَّهُ عَلَى بَنَاتِ آدَمَ قَالَتْ فَقُمْتُ فَأَصْلَحْتُ مِنْ شَأْنِي ثُمَّ رَجَعْتُ قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ ادْخُلِي فِي اللِّحَافِ فَدَخَلْتُ

أخبرنا يعلى بن عبيد ويزيد بن هارون عن محمد بن عمرو عن أبي سلمة عن أم سلمة قالت كنت مع رسول الله صلى الله عليه وسلم في لحاف فوجدت ما تجد النساء فقمت فقال رسول الله صلى الله عليه وسلم ما لك أنفست قلت وجدت ما تجد النساء قال ذاك ما كتب الله على بنات آدم قالت فقمت فأصلحت من شأني ثم رجعت قال رسول الله صلى الله عليه وسلم ادخلي في اللحاف فدخلت

 হাদিসের মানঃ হাসান (Hasan)  বর্ণনাকারীঃ আবূ সালামাহ্ ইবনু আবদুর রাহমান (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৭৯

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৭. হায়িযগ্রস্ত স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করা

১০৭৯. যাইনাব বিনতে উম্মু সালামাহ হতে বর্ণিত, উম্মু সালামাহ রাদ্বিয়াল্লাহু আনহা বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সাথে একটি মখমলের কম্বলের নিচে শায়িত ছিলাম। আকস্মিকভাবে আমার হায়িয শুরু হলে আমি চুপে চুপে বেরিয়ে গিয়ে আমার হায়িযের কাপড় পরিধান করে নিলাম। তখন তিনি বললেন: “তোমার কি নিফাস (হায়িয) হয়েছে?” আমি বললাম: জ্বি। তিনি বলেন: তখন তিনি আমাকে ডাকলেন ফলে আমি তার সাথে কম্বলের ভেতর শুয়ে পড়লাম।তিনি বলেন: তিনি ও রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উভয়ে এক পাত্র হতে পানি নিয়ে জানাবাতের গোসল করতেন। আর তিনি সিয়ামরত অবস্থায় তাকে চুম্বন করতেন।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ। এটি বুখারী ও মুসলিমের হাদীস।

 

তাখরীজ: সহীহ বুখারী ২৯৮; সহীহ মুসলিম ২৯৬।

 

আমরা এর পূর্ণ তাখরীজ দিয়েছি মুসনাদুল মাউসিলী নং ৬৯৯১ ও সহীহ ইবনু হিব্বান নং ১৩৬৩।

بَاب مُبَاشَرَةِ الْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا وَهْبُ بْنُ جَرِيرٍ عَنْ هِشَامٍ الدَّسْتَوَائِيِّ عَنْ يَحْيَى عَنْ أَبِي سَلَمَةَ عَنْ زَيْنَبَ بِنْتِ أُمِّ سَلَمَةَ عَنْ أُمِّ سَلَمَةَ قَالَتْ بَيْنَا أَنَا مَعَ رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ مُضْطَجِعَةٌ فِي الْخَمِيلَةِ إِذْ حِضْتُ فَانْسَلَلْتُ فَأَخَذْتُ ثِيَابَ حِيضَتِي فَقَالَ أَنَفِسْتِ قُلْتُ نَعَمْ قَالَتْ دَعَانِي فَاضْطَجَعْتُ مَعَهُ فِي الْخَمِيلَةِ قَالَتْ وَكَانَتْ هِيَ وَرَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَغْتَسِلَانِ مِنْ الْإِنَاءِ الْوَاحِدِ مِنْ الْجَنَابَةِ وَكَانَ يُقَبِّلُهَا وَهُوَ صَائِمٌ

أخبرنا وهب بن جرير عن هشام الدستوائي عن يحيى عن أبي سلمة عن زينب بنت أم سلمة عن أم سلمة قالت بينا أنا مع رسول الله صلى الله عليه وسلم مضطجعة في الخميلة إذ حضت فانسللت فأخذت ثياب حيضتي فقال أنفست قلت نعم قالت دعاني فاضطجعت معه في الخميلة قالت وكانت هي ورسول الله صلى الله عليه وسلم يغتسلان من الإناء الواحد من الجنابة وكان يقبلها وهو صائم

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ যায়নাব বিনত আবূ সালামাহ (রাঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৮০

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৭. হায়িযগ্রস্ত স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করা

১০৮০. আব্দুল্লাহ ইবনু শাদ্দাদ রাহি. হতে বর্ণিত, মাইমুনাহ রাদ্বিয়াল্লাহু আনহা বলেন: রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাঁর স্ত্রীদের কারো কারো সাথে ইযার (পায়জামা)-এর উপর দিয়ে মেলামেশা করতেন, অথচ তখন সেই স্ত্রী হায়িয অবস্থায় থাকতেন।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: আমরা এর পূর্ণ তাখরীজ দিয়েছি মুসনাদুল মাউসিলী নং ৭০৮২ ও সহীহ ইবনু হিব্বান নং ১৩৬৮; আরও দেখুন, সুনানে বাইহাকী ৭/১৯১।

بَاب مُبَاشَرَةِ الْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا عَمْرُو بْنُ عَوْنٍ حَدَّثَنَا خَالِدٌ عَنْ الشَّيْبَانِيِّ عَنْ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ شَدَّادٍ عَنْ مَيْمُونَةَ قَالَتْ كَانَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يُبَاشِرُ الْمَرْأَةَ مِنْ نِسَائِهِ فَوْقَ الْإِزَارِ وَهِيَ حَائِضٌ

أخبرنا عمرو بن عون حدثنا خالد عن الشيباني عن عبد الله بن شداد عن ميمونة قالت كان رسول الله صلى الله عليه وسلم يباشر المرأة من نسائه فوق الإزار وهي حائض

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ আবদুল্লাহ ইব্‌নু শাদ্দাদ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৮১

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৭. হায়িযগ্রস্ত স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করা

১০৮১. আবী মায়সারাহ আমর ইবনু শুরাহবীল হতে বর্ণিত, আয়িশা রাদ্বিয়াল্লাহু আনহা বলেন, আমাদের কারো হায়িয হলে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম নির্দেশ দিতেন যে, সে যেনো তার ইযার শক্তভাবে বেঁধে নেয়। এরপর তিনি তার সাথে মেলামেশা করতেন।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: ১০৭৭ (অনুবাদে ১০৭১) নং এর তাখরীজ গত হয়েছে।

بَاب مُبَاشَرَةِ الْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا بِشْرُ بْنُ عُمَرَ الزَّهْرَانِيُّ حَدَّثَنَا أَبُو الْأَحْوَصِ حَدَّثَنَا أَبُو إِسْحَقَ عَنْ أَبِي مَيْسَرَةَ عَمْرِو بْنِ شُرَحْبِيلَ عَنْ عَائِشَةَ قَالَتْ كَانَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَأْمُرُ إِحْدَانَا إِذَا كَانَتْ حَائِضًا أَنْ تَشُدَّ عَلَيْهَا إِزَارَهَا ثُمَّ يُبَاشِرُهَا

أخبرنا بشر بن عمر الزهراني حدثنا أبو الأحوص حدثنا أبو إسحق عن أبي ميسرة عمرو بن شرحبيل عن عائشة قالت كان رسول الله صلى الله عليه وسلم يأمر إحدانا إذا كانت حائضا أن تشد عليها إزارها ثم يباشرها

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ আবী মায়সারাহ আমর ইবনু শুরাহবীল (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৮২

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ

১০৮২. আবী মাইসারাহ হতে বর্ণিত, উম্মুল মু’মিনীনদের কোনো একজন বলেন, আমি হায়িযগ্রস্ত হলে ইযার পরিধান করতাম। তারপর রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সাথে তাঁর লেপের ভেতরে প্রবেশ করতাম।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: বাইহাকী ১/৩১৪; আগের টীকাটি দেখুন। এছাড়া আয়িশা রা: এর হাদীস পরবর্তী ১০৯২ (অণুবাদে ১০৮৬) নং এও আসছে।

أَخْبَرَنَا عَبْدُ الصَّمَدِ حَدَّثَنَا شُعْبَةُ عَنْ أَبِي إِسْحَقَ عَنْ أَبِي مَيْسَرَةَ قَالَ قَالَتْ أُمُّ الْمُؤْمِنِينَ كُنْتُ أَتَّزِرُ وَأَنَا حَائِضٌ ثُمَّ أَدْخُلُ مَعَ رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فِي لِحَافِهِ

أخبرنا عبد الصمد حدثنا شعبة عن أبي إسحق عن أبي ميسرة قال قالت أم المؤمنين كنت أتزر وأنا حائض ثم أدخل مع رسول الله صلى الله عليه وسلم في لحافه

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ আবী মায়সারাহ আমর ইবনু শুরাহবীল (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৮৩

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৭. হায়িযগ্রস্ত স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করা

১০৮৩. ইয়াযীদ ইবনু আবী যিয়াদ বলেন, ইবনু জুবাইর কে জিজ্ঞেস করা হলো, স্ত্রী যখন হায়িযগ্রস্ত হয়, তখন একজন পুরুষের জন্য তার স্ত্রীর কতটুকু হালাল?তিনি বললেন: ইযার (পাজামা)-এর উপর দিয়ে যা কিছু করা সম্ভব।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ যয়ীফ। কারণ, ইয়াযীদ ইবনু আবী যিয়াদ যয়ীফ।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ৪/২৫৪।

بَاب مُبَاشَرَةِ الْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا عَمْرُو بْنُ عَوْنٍ عَنْ خَالِدِ بْنِ عَبْدِ اللَّهِ عَنْ يَزِيدَ بْنِ أَبِي زِيَادٍ قَالَ سُئِلَ ابْنُ جُبَيْرٍ مَا لِلرَّجُلِ مِنْ امْرَأَتِهِ إِذَا كَانَتْ حَائِضًا قَالَ مَا فَوْقَ الْإِزَارِ

أخبرنا عمرو بن عون عن خالد بن عبد الله عن يزيد بن أبي زياد قال سئل ابن جبير ما للرجل من امرأته إذا كانت حائضا قال ما فوق الإزار

 হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai’f)  বর্ণনাকারীঃ ইয়াযীদ ইবনু আবী যিয়াদ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৮৪

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৭. হায়িযগ্রস্ত স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করা

১০৮৪. মুহাম্মদ ইবনু সীরীন থেকে বর্ণিত, হায়িযগ্রস্ত মহিলা সম্পর্কে আবীদাহ রাহি. বলেন, বিছানা একটিই হবে, তবে লেপ হতে হবে আলাদা। কিন্তু যদি আলাদা লেপ না থাকে, তবে স্বামী নিজের লেপ দিয়েই তাকে জড়িয়ে নেবে।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: তাবারী, তাফসীর ২/৩৮২।

بَاب مُبَاشَرَةِ الْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا يَزِيدُ بْنُ هَارُونَ أَخْبَرَنَا ابْنُ عَوْنٍ عَنْ مُحَمَّدِ بْنِ سِيرِينَ عَنْ عَبِيدَةَ فِي الْحَائِضِ قَالَ الْفِرَاشُ وَاحِدٌ وَاللُّحُفُ شَتَّى فَإِنْ كَانُوا لَا يَجِدُونَ رَدَّ عَلَيْهَا مِنْ لِحَافِهِ

أخبرنا يزيد بن هارون أخبرنا ابن عون عن محمد بن سيرين عن عبيدة في الحائض قال الفراش واحد واللحف شتى فإن كانوا لا يجدون رد عليها من لحافه

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ ইবনু সীরীন (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৮৫

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৭. হায়িযগ্রস্ত স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করা

১০৮৫. মুহাম্মদ ইবনু সীরীন হতে বর্ণিত, শুরাইহ রাহি. বলেন: (হায়িযগ্রস্ত স্ত্রীর) নাভীর উপরের অংশে যা কিছু করা সম্ভব, (স্বামী করতে পারে)।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: আব্দুর রাযযাক নং ১২৩৯; তাবারী, তাফসীর ২/৩৮৪।

بَاب مُبَاشَرَةِ الْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا يَزِيدُ بْنُ هَارُونَ حَدَّثَنَا ابْنُ عَوْنٍ عَنْ مُحَمَّدِ بْنِ سِيرِينَ عَنْ شُرَيْحٍ قَالَ لَهُ مَا فَوْقَ السَّرَرِ أَوْ السُّرَّةِ

أخبرنا يزيد بن هارون حدثنا ابن عون عن محمد بن سيرين عن شريح قال له ما فوق السرر أو السرة

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ ইবনু সীরীন (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৮৬

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৭. হায়িযগ্রস্ত স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করা

১০৮৬. ইয়াযীদ ইবনু বাবানূস থেকে বর্ণিত, তিনি আয়িশা রাদ্বিয়াল্লাহু আনহা হতে বর্ণনা করেন যে, আয়িশা রাদ্বিয়াল্লাহু আনহা বলেছেন, আমি হায়িযগ্রস্ত থাকা অবস্থায় রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আমাকে জড়িয়ে ধরতেন এবং আমার মাথায় আদর করতেন। তখন আমার ও তাঁর মাঝে কেবল একটি কাপড় থাকতো।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: ((মুসনাদে আহমাদ ৬/১৮৭ নং ২৫৫৮৩)); আবু দাউদ তায়ালিসী ১/৬২ নং ২৩৮; বাইহাকী ১/৩১২; আমরা এর পূর্ণ তাখরীজ দিয়েছি মুসনাদুল মাউসিলী নং ৪৪৮৭; পূর্ণ তাখরীজের জন্য দেখুন ১০৭৭, ১০৭৮, ১০৮৭, ১০৮৮ (অনুবাদে ১০৭১, ১০৭২, ১০৮১, ১০৮২) নং হাদীসগুলি।

بَاب مُبَاشَرَةِ الْحَائِضِ

حَدَّثَنَا سُلَيْمَانُ بْنُ حَرْبٍ حَدَّثَنَا حَمَّادُ بْنُ سَلَمَةَ عَنْ أَبِي عِمْرَانَ الْجَوْنِيِّ عَنْ يَزِيدَ بْنِ بَابَنُوسَ عَنْ عَائِشَةَ قَالَتْ كَانَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَتَوَشَّحُنِي وَأَنَا حَائِضٌ وَيُصِيبُ مِنْ رَأْسِي وَبَيْنِي وَبَيْنَهُ ثَوْبٌ

حدثنا سليمان بن حرب حدثنا حماد بن سلمة عن أبي عمران الجوني عن يزيد بن بابنوس عن عائشة قالت كان رسول الله صلى الله عليه وسلم يتوشحني وأنا حائض ويصيب من رأسي وبيني وبينه ثوب

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৮৭

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৭. হায়িযগ্রস্ত স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করা

১০৮৭. ছাবিত হতে বর্ণিত, তিনি আনাস রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণনা করেন, যখন ইয়াহুদীদের কোনো নারীর হায়েয হতো, তখন তারা তার সাথে একত্রে বসে খানাপিনা করতো এবং তাকে ঘর থেকে বের করে দিতো আর সেও তাদের সাথে একইঘরে থাকতো না।

এরপর নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে এ সম্পর্কে প্রশ্ন করা হলে আল্লাহ তা’আলা নাযিল করলেন: (“এবং তারা তোমাকে (স্ত্রীলোকদের) ঋতুকাল সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করছে; তুমি বলো: ওটা হচ্ছে কষ্টদায়ক অবস্থা…।” (সুরা বাকার: ২২২)) তখন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাদের (হায়িযগ্রস্ত মহিলাদের) সাথে একত্রে বসে খানাপিনা করতে এবং তাকে তাদের সাথে একইঘরে থাকতে নির্দেশ দিলেন। আর সহবাস ব্যতীত আর সকল কিছু করতে তাদেরকে আদেশ করলেন। তখন এক ইয়াহুদী বললো, এ লোকটি তো উদ্দেশ্যই হলো প্রতিটি কাজেই আমাদের বিরোধিতা করা।

তারপর আব্বাদ ইবনু বিশর ও উসাইদ ইবনু হুযাইর রাদ্বিয়াল্লাহু আনহুমা রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নিকট এসে এ খবর দিয়ে বললো, ইয়া রাসূলুল্লাহ! তাদের হায়িযকালীন সময়ে আমরা কি তাদের সাথে মিলিত হবো না? (একথা শুনে) রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের চেহারা ভীষণ বিবর্ণ হয়ে গেলো। এমনকি আমরা ধারণা করলাম, তিনি তাদের দু’জনের উপর রাগান্বিত হয়েছেন। তারা উঠে দাঁড়িয়ে সেখান থেকে বেরিয়ে গেলেন। আর তখনই দুধ হাদিয়া এসে গেলো। ফলে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাদের দু’জনের অনসন্ধানে লোক পাঠালেন এবং সে তাদেরকে ফিরিয়ে আনল এবং তিনি তাদেরকে (দুধ) পান করালেন। তখন আমরা বুঝতে পারলাম যে, তিনি তাদের দু’জনের উপর রাগান্বিত হননি।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: সহীহ মুসলিম ৩০২; আমরা এর পূর্ণাঙ্গ তাখরীজ দিয়েছি মুসনাদুল মাউসিলী নং ৩৫৩৩ ও সহীহ ইবনু হিব্বান নং ১২৬২ তে।

بَاب مُبَاشَرَةِ الْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا سُلَيْمَانُ بْنُ حَرْبٍ حَدَّثَنَا حَمَّادُ بْنُ سَلَمَةَ عَنْ ثَابِتٍ عَنْ أَنَسٍ أَنَّ الْيَهُودَ كَانُوا إِذَا حَاضَتْ الْمَرْأَةُ فِيهِمْ لَمْ يُؤَاكِلُوهَا وَلَمْ يُشَارِبُوهَا وَأَخْرَجُوهَا مِنْ الْبَيْتِ وَلَمْ تَكُنْ مَعَهُمْ فِي الْبُيُوتِ فَسُئِلَ النَّبِيُّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ عَنْ ذَلِكَ فَأَنْزَلَ اللَّهُ تَعَالَى وَيَسْأَلُونَكَ عَنْ الْمَحِيضِ قُلْ هُوَ أَذًى فَأَمَرَهُمْ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ أَنْ يُؤَاكِلُوهُنَّ وَأَنْ يُشَارِبُوهُنَّ وَأَنْ يَكُنَّ مَعَهُمْ فِي الْبُيُوتِ وَأَنْ يَفْعَلُوا كُلَّ شَيْءٍ مَا خَلَا النِّكَاحَ فَقَالَتْ الْيَهُودُ مَا يُرِيدُ هَذَا أَنْ يَدَعَ شَيْئًا مِنْ أَمْرِنَا إِلَّا خَالَفَنَا فِيهِ فَجَاءَ عَبَّادُ بْنُ بِشْرٍ وَأُسَيْدُ بْنُ حُضَيْرٍ إِلَى رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فَأَخْبَرَاهُ بِذَلِكَ وَقَالَا يَا رَسُولَ اللَّهِ أَفَلَا نَنْكِحُهُنَّ فِي الْمَحِيضِ فَتَمَعَّرَ وَجْهُ رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ تَمَعُّرًا شَدِيدًا حَتَّى ظَنَنَّا أَنَّهُ وَجَدَ عَلَيْهِمَا فَقَامَا فَخَرَجَا فَاسْتَقْبَلَتْهُمَا هَدِيَّةُ لَبَنٍ فَبَعَثَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فِي آثَارِهِمَا فَرَدَّهُمَا فَسَقَاهُمَا فَعَلِمْنَا أَنَّهُ لَمْ يَغْضَبْ عَلَيْهِمَا

أخبرنا سليمان بن حرب حدثنا حماد بن سلمة عن ثابت عن أنس أن اليهود كانوا إذا حاضت المرأة فيهم لم يؤاكلوها ولم يشاربوها وأخرجوها من البيت ولم تكن معهم في البيوت فسئل النبي صلى الله عليه وسلم عن ذلك فأنزل الله تعالى ويسألونك عن المحيض قل هو أذى فأمرهم رسول الله صلى الله عليه وسلم أن يؤاكلوهن وأن يشاربوهن وأن يكن معهم في البيوت وأن يفعلوا كل شيء ما خلا النكاح فقالت اليهود ما يريد هذا أن يدع شيئا من أمرنا إلا خالفنا فيه فجاء عباد بن بشر وأسيد بن حضير إلى رسول الله صلى الله عليه وسلم فأخبراه بذلك وقالا يا رسول الله أفلا ننكحهن في المحيض فتمعر وجه رسول الله صلى الله عليه وسلم تمعرا شديدا حتى ظننا أنه وجد عليهما فقاما فخرجا فاستقبلتهما هدية لبن فبعث رسول الله صلى الله عليه وسلم في آثارهما فردهما فسقاهما فعلمنا أنه لم يغضب عليهما

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৮৮

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৭. হায়িযগ্রস্ত স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করা

১০৮৮. শাইবা ইবনু হিশাম আর রাসিবী বলেন, আমি সালিম ইবনু আব্দুল্লাহকে এমন এক ব্যক্তি সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলাম যে তার হায়িযগ্রস্ত স্ত্রীর সাথে একই লেপের মধ্যে শয়ন করে। কথা হলো, আমরা উমারের (রা:) পরিবারের লোক। অতএব, আমাদের স্ত্রীগণ হায়িযগ্রস্ত হলে আমরা তাদের থেকে দূরে থাকি।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ হাসান, আবী হিলাল আর রাসিবীর কারণে।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ৪/২৫৫।

بَاب مُبَاشَرَةِ الْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا أَبُو نُعَيْمٍ حَدَّثَنَا أَبُو هِلَالٍ حَدَّثَنِي شَيْبَةُ بْنُ هِشَامٍ الرَّاسِبِيُّ قَالَ سَأَلْتُ سَالِمَ بْنَ عَبْدِ اللَّهِ عَنْ الرَّجُلِ يُضَاجِعُ امْرَأَتَهُ وَهِيَ حَائِضٌ فِي لِحَافٍ وَاحِدٍ فَقَالَ أَمَّا نَحْنُ آلَ عُمَرَ فَنَهْجُرُهُنَّ إِذَا كُنَّ حُيَّضًا

أخبرنا أبو نعيم حدثنا أبو هلال حدثني شيبة بن هشام الراسبي قال سألت سالم بن عبد الله عن الرجل يضاجع امرأته وهي حائض في لحاف واحد فقال أما نحن آل عمر فنهجرهن إذا كن حيضا

 হাদিসের মানঃ হাসান (Hasan)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৮৯

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৭. হায়িযগ্রস্ত স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করা

১০৮৯. নাফি’ রাহি. হতে বর্ণিত, ইবনু উমার রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু বলেন, কোনো নারীর ওযুর অবশিষ্ট পানি ব্যাবহারে কোনো দোষ নেই, যতক্ষণ সে ’জুনুবী’ (অপবিত্র) অথবা হায়েযগ্রস্ত না হয়।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: রাবীগণ নির্ভরযোগ্য। তবে ইবনু ইসহাক মুদাল্লিস আর তিনি এটি ‘আন আন’ পদ্ধতিতে বর্ণনা করেছেন। ফলে এ সনদ যয়ীফ। ((তবে হাদীসটি সহীহ লিগয়রিহী- যা তাখরীজে উল্লেখিত হয়েছে- অনুবাদক))।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ১/৩৩; আব্দুর রাযযাক নং ৩৯৪ সহীহ সনদে।

بَاب مُبَاشَرَةِ الْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا أَحْمَدُ بْنُ خَالِدٍ عَنْ مُحَمَّدِ بْنِ إِسْحَقَ عَنْ نَافِعٍ عَنْ ابْنِ عُمَرَ قَالَ لَا بَأْسَ بِفَضْلِ وَضُوءِ الْمَرْأَةِ مَا لَمْ تَكُنْ جُنُبًا أَوْ حَائِضًا

أخبرنا أحمد بن خالد عن محمد بن إسحق عن نافع عن ابن عمر قال لا بأس بفضل وضوء المرأة ما لم تكن جنبا أو حائضا

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  বর্ণনাকারীঃ নাফি‘ (রহঃ)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৯০

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৭. হায়িযগ্রস্ত স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করা

১০৯০. গায়লান হতে বর্ণিত, হাকাম বলেন, সেই মহিলা তার স্বামীর সাথে যথাস্থানে তথা গোপনাঙ্গের উপর জড়াজড়ি করতে পারবে (এতে কোনো দোষ নেই। তবে, স্বামী তাতে প্রবিষ্ট করাবে না)।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ সহীহ।

 

তাখরীজ: ইবনু আবী শাইবা ৪/২৫৫; সেখানকার শব্দাবলি: “তার গোপনাঙ্গে তা স্থাপন করাতে কোনো দোষ নেই, তবে সে তা প্রবিষ্ট করাতে পারবে না।”

بَاب مُبَاشَرَةِ الْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا مُحَمَّدُ بْنُ يُوسُفَ حَدَّثَنَا سُفْيَانُ عَنْ غَيْلَانَ عَنْ الْحَكَمِ قَالَ يَضَعُهُ وَضْعًا يَعْنِي عَلَى الْفَرْجِ

أخبرنا محمد بن يوسف حدثنا سفيان عن غيلان عن الحكم قال يضعه وضعا يعني على الفرج

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

 ১০৯১

 শেয়ার ও অন্যান্য 

  • বাংলা/ العربية

পরিচ্ছেদঃ ১০৭. হায়িযগ্রস্ত স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করা

১০৯১. মায়মুনাহ’র মুক্তদাসী নুদবাহ নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সহধর্মিণী মায়মুনাহ রাদ্বিয়াল্লাহু আনহা হতে বর্ণনা করেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাঁর স্ত্রীগণের কারো সাথে মেলামেশা (জড়াজড়ি) করতেন, অথচ সে তখন হায়িযগ্রস্ত থাকতো। তখন তার পরিধেয় ইযার (নিম্নাংশের পোশাক) তার উরুদ্বয় কিংবা হাঁটুদ্বয়ের অর্ধাংশ পর্যন্ত আবৃত রাখতো।[1]

[1] তাহক্বীক্ব: এর সনদ যয়ীফ, তবে হাদীসটি সহীহ।

 

তাখরীজ: আমরা এর পূর্ণ তাখরীজ করেছি মুসনাদুল মাউসিলী (৭০৮২, ৭০৮৯, ৭০৯২, ৭১০৪ ; সহীহ ইবনু হিব্বান নং ১৩৬৫। আরও দেখুন, বিগত ১০৮৬ (অনুবাদে ১০৮০) নং হাদীসটি।

بَاب مُبَاشَرَةِ الْحَائِضِ

أَخْبَرَنَا عَبْدُ اللَّهِ بْنُ صَالِحٍ قَالَ حَدَّثَنِي اللَّيْثُ حَدَّثَنِي ابْنُ شِهَابٍ عَنْ حَبِيبٍ مَوْلَى عُرْوَةَ عَنْ نُدْبَةَ مَوْلَاةِ مَيْمُونَةَ عَنْ مَيْمُونَةَ زَوْجِ النَّبِيِّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ كَانَ يُبَاشِرُ الْمَرْأَةَ مِنْ نِسَائِهِ وَهِيَ حَائِضٌ إِذَا كَانَ عَلَيْهَا إِزَارٌ يَبْلُغُ أَنْصَافَ الْفَخِذَيْنِ أَوْ الرُّكْبَتَيْنِ مُحْتَجِزَةً بِهِ

أخبرنا عبد الله بن صالح قال حدثني الليث حدثني ابن شهاب عن حبيب مولى عروة عن ندبة مولاة ميمونة عن ميمونة زوج النبي صلى الله عليه وسلم أن رسول الله صلى الله عليه وسلم كان يباشر المرأة من نسائه وهي حائض إذا كان عليها إزار يبلغ أنصاف الفخذين أو الركبتين محتجزة به

 হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)  পুনঃনিরীক্ষণঃ   সুনান আদ-দারেমী (হাদিসবিডি)  ১. পবিত্রতা অধ্যায় (كتاب الطهارة)

Leave a Comment

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।